এবার অমিত শাহ করতে চলেছেন এমন কিছু, যাতে রাতের ঘুম উড়ে যাবে তৃণমূলের।

ভারতীয় জনতা পার্টির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ ১১ আগস্ট কলকাতা যাবেন। এই সফরের আগে অমিত শাহ জানিয়েছিলেন যে তিনি প্রত্যেক মাসে কলকাতা যাবেন এবং সেখানে তিনদিন থাকবেন। পশ্চিমবঙ্গের একটা প্রতিষ্ঠিত সংবাদপত্রকে ইন্টারভিউ দেওয়ার সময় তিনি পশ্চিমবঙ্গের বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় আলোচনা করেছিলেন। ওই ইন্টারভিউতে উনি জানিয়েছিলেন যে তিনি প্রতি মাসে একবার কলকাতা যাবেন এবং সেখানে ৩ দিন কাটাবেন। এই জন্য তিনি একটা বাড়ি ভাড়ার নেওয়ার ব্যাপারেও ভাবছেন।

অমিত শাহ বলেন, রাজ্যের মানুষ উনার পার্টি এবং উনার সাথে ভালোবাসা প্রকাশ করেন আর সেই ভালবাসা উনিও লোকজনকে দিতে চান। অমিত শাহকে প্রশ্ন করা হয়েছিল, যে আপনি কি মনে করেন , পশ্চিমবঙ্গে সরকার গঠন করতে পারবেন? এর উত্তরে শাহ বলেন, ‘আপনি কি কখনো ভেবেছিলেন যে আমরা ত্রিপুরায় সরকার গঠন করতে সক্ষম হবো? আমরা যেভাবে ত্রিপুরায় সফল হয়েছি সেই একইভাবে আমরা পশ্চিমবঙ্গেও সফল হবো।’

শাহ আরো বলেন, পশ্চিমবঙ্গের জমি স্তরে দুর্নীতি চলছে, সাধারণ অমানুষ সরকারের দেওয়া কোনো সুযোগ সুবিধা পাচ্ছে না। বামপন্থীদের আমলে এখানে তেমন কোনো শিল্প ছিল না আর মমতা আমলেও সেই একই হচ্ছে। সম্প্রদিকতার অভিযোগে অমিত শাহ বলেন, আসলে মমতা সমস্ত রাজ্যবাসীর কথা বলে না শুধু মাত্র উনি অল্পসংখ্যকদের ভোটব্যাঙ্কের রাজনীতি খেলেন যা সমস্ত নাগরিকের সমান অধিকারের বিরুদ্ধে। শাহ বলেন, আমি মনে করি বাঙালিরা সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে আর আমি এই মানুষদের সাথে আছি।

আপনাদের জানিয়ে রাখি, অমিত শাহ এবার পশ্চিমবঙ্গ জয়ের জন্য গিয়ার চেঞ্জ করতে শুরু করে দিয়েছেন। আর অমিত শাহের এই সংকেত শাসকদল তৃণমূলের ভেতরে আতঙ্ক সৃষ্টি করছে তা নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই। অমিত শাহ এমন একজন সভাপতি যিনি খুব সহজেই বুঝে নেন যে কোন রাজ্যের চাহিদা কেমন আর সেই হিসেবেই তৈরি করি করেন রণনীতি। বর্তমানে অমিত শাহ যেভাবে পশ্চিমবঙ্গকে নিয়ে পদক্ষেপ নিতে শুরু করেছে তা অবশ্যই মমতার দলের নেতাদের রাতের ঘুম উড়িয়ে দেবে। আপনাদের জানিয়ে রাখি, অমিত শাহ কয়েকদিন আগেই জানিয়েছেন যে পশ্চিমবঙ্গে তাদের সরকার গঠন হলে NRC করানো হবে এবং অবৈধ বাংলাদেশিদের খুঁজে খুঁজে বের করা হবে।

Related Post

Open

Close