মোদী সরকারের ৪ বছরের কাজের উপর WHO যা রিপোর্ট বের করলো তা অবাক করবে দেশবাসীকে।

২০১৪ তে ক্ষমতায় আসার পর প্ৰধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী নোটবন্দি, GST, স্বচ্ছতা অভিযান, শৌচালয় নির্মাণ এর মতো একের একের পর বড় পদক্ষেপ নিয়ে ছিলেন। প্রথমদিকে মানুষজন এই পদক্ষপের গম্ভিরতা বুঝতে পারছিলেন না। কিন্তু এখন ৪ বছর পর যেইমাত্র এই যোজনাগুলির রিপোর্ট আসতে শুরু করেছে তখন দেশের জনগণ নিজের চোখে দেখেও রিপোর্টে বিশ্বাস করতে পারছেন না। রিপোর্ট যে দেশের সরকার বের করছে তা নয় বরং বিশ্বের আন্তর্জাতিক এজেন্সিগুলি এই রিপোর্ট বের করছে। এইরকমই আরো এবার দেশের সবথেকে বড় সংস্থা প্রধানমন্ত্রীর যোজনার উপর দারুন রিপোর্ট পেশ করেছে।

আন্তর্জাতিক সংগঠন ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশন মোদী সরকারের যোজনাগুলির উপর এমন রিপোর্ট পেশ করেছে যে বিরোধীদের চোখ খুলে যাবে। ওয়ার্ল্ড হেলদ অর্গানাইজেশন প্রধানমন্ত্রীর স্বচ্ছতা অভিযান ও বাইরে শৌচকর্ম আটকাবার জন্য শৌচালয় নির্মাণের কাজের ভরপুর প্রশংসা করেছে। শুক্রুবার দিন WHO জানিয়েছে যে যদি ভারত এই ভাবেই স্বচ্ছতা অভিযানকে চালিয়ে যেতে পারে তাহলে প্রতি বছর ডায়রিয়া ও অন্যান্য সংক্রমণ ঘটিত রোগ থেকে যে লক্ষ লক্ষ মানুষের মৃত ঘটে তা আটকাতে সম্ভব হবে।

এই বিষয়ে WHO কয়েক বছরের ভারতে এই ধরণের রোগ সংক্রমণে মৃত্যুর রিপোর্ট এর সাথে বর্তমানের রিপোর্ট এর তুলনাও করেছে। রিপোর্ট অনুযায়ী স্বচ্ছতা অভিযান শুরু হওয়ার পর গ্রামীণ এলাকায় ১.৮ লক্ষ মানুষের মৃত্যুকে আটকানো সম্ভব হয়েছে। স্বচ্ছতা অভিযানে মূলত বাইরে শৌচকর্ম আটকানো এবং শৌচালয় নির্মানের উপর জোর দেওয়া হয়। আপনাদের জানিয়ে রাখি, দেশের জনগণকে সচেতন করার জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাজে যোগ করতে এগিয়ে এসেছিলেন অমিতাভ বচ্চন, অক্ষয় কুমারের মতো অভিনেতারা। আমিতভাভ বচ্চন বাইরে শৌচকর্মের খারাপ প্রভাব সম্পর্কিত বহু প্রচার চালিয়েছিলেন যার বড়রকমের লাভ এখন দেখা মিলছে।

অন্যদিকে অক্ষয় কুমার তার টয়লেট সিনেমার মধ্যে দিয়ে দেশকে দারুন ভাবে সচেতন করতে সক্ষম হয়েছিলেন। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী নিজে অক্ষয় কুমারের টয়লেট সিনেমা দেখেছিলেন। মোদী সরকার ২০১৪ সালের ২ অক্টোবর স্বচ্ছতা অভিযান মিশন চালু করেছিল যাতে গ্রামে রোগ সংক্রমণের প্রভাবে যে মৃত্যু ঘটে তা আটকানো যায়। এখন WHO এর রিপোর্ট আসার পর এটা পরিষ্কার বোঝা যাচ্ছে যে মোদী সরকার তাদের কাজ সঠিকভাবে করতে সক্ষম হচ্ছে।

Related Post

Open

Close