Press "Enter" to skip to content

অভিযুক্ত বিশেষ ধর্মের বলেই কি ফরিদাবাদ কান্ড নিয়ে চুপ মমতা ব্যানার্জী, অধীর, রাহুল, বুদ্ধিজীবিরা! উঠছে প্রশ্ন

হরিয়ানার ফরিদাবাদে ের হত্যাকান্ড নিয়ে পুরো দেশে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। দিনদাহাড়ে নামের যুবতীকে গুলি মেরে হত্যা করা হয়েছে। পরিবারের অভিযোগ মহম্মদ তৌসিফ নামের যুবক ২০১৮ সাল থেকে নিকিতাকে জ্বালাতন করতো। মহম্মদ তৌসিফের উদেশ্য ছিল নিকিতার ধৰ্ম পরিবর্তন করিয়ে তাকে নিকাহ করা। তবে এই প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় নিকিতার খুন করে তৌসিফ।

নিকিতা তোমারের হত্যাকাণ্ড নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় তোলপাড় হলেও রাজনৈতিক মহলে তেমন কোনো পতিক্রিয়া দেখা মেলেনি। আর নিয়ে বড়ো প্ৰশ্ন উঠতে শুরু হয়েছে। আসলে মাত্র কয়েক সপ্তাহ আগে হাথরস কান্ড নিয়ে বিজেপির বিরোধী দলগুলি এক হয়ে যোগী সরকারকে ঘিরতে শুরু করেছিল। অভিযোগ তোলা হয়েছিল যে বিজেপি দলিত কন্যাদের সুরক্ষা দিচ্ছে না। একইভাবে তাবরেজ আনসারির লিনচিং নিয়েও বিরোধিতা প্রায় এক জোট হয়ে বিজেপি সরকারের বিরুদ্ধে প্রশ্নঃ তুলেছিল।

https://platform.twitter.com/widgets.js

রাহুল গান্ধী হাথরস কান্ড নিয়ে জমিয়ে রাজনীতিও করছেন বলেও অভিযোগ উঠেছিল। হাথরস কান্ডের প্রতিবাদে কংগ্রেস ও তৃণমুল কংগ্রেসের বেশকিছু নেতা নেত্রী হাথরসে পৌঁছেগেছিল। তবে হরিয়ানার ঘটনা নিয়ে অদ্ভুতভাবে সকল বিরোধিরা একেবারে নিশ্চুপ। অথচ উত্তরপ্রদেশের মতো হরিয়ানাও বিজেপি শাসিত রাজ্য। হাথরস কান্ডের প্রতিবাদে থেকে শুরু করে অধীর চৌধুরীকে মিছিল করতে পর্যন্ত দেখা গেছিল।

https://platform.twitter.com/widgets.js

তবে এখন নিকিতা তোমার হত্যাকাণ্ডে মমতা ব্যানার্জী, অধীর চৌধুরীর মতো নেতা নেত্রীরা যেভাবে চুপ করে আছেন তা নানা প্রশ্ন তুলেছে। প্রশ্ন ওঠছে তাহলে কি নিকিতা তোমরের হত্যাকাণ্ডে লাভ জিহাদের প্রসঙ্গ তাই সকলে চুপ। নাকি অভিযুক্ত বিশেষ ধর্মের বলে মুখে কুলুপ এঁটেছেন রাজনৈতিক দলের নেতা নেত্রী ও বুদ্ধিজীবীরা। একইভাবে নিকিতা তোমরের হত্যাকাণ্ড নিয়ে স্বরা ভাস্কর, কারিনা কাপুর খান, সোনম কাপুরের মতো তথাকথিত নারীবাদীদের উপরেও একই প্রশ্ন উঠছে। কারণ আসিফা কাণ্ডে এই নারীবাদীদের ব্যাপক প্রতিবাদ করতে দেখা গেলেও লাভ জিহাদ বা নিকিতা তোমারের মতো হত্যাকান্ডের বেলায় সকলে মুখে লাগাম লাগিয়েছেন।