Press "Enter" to skip to content

অ্যাকশন মুডে সেনা, উপত্যকায় নিকেশ লস্করের পাকিস্তানি প্রধান, জোর কদমে চলছে অভিযান

[ad_1]

নয়া দিল্লিঃ নিরাপত্তা বাহিনী এনকাউন্টারে সন্ত্রাসী সংগঠন লস্কর-ই-তৈয়বার কুখ্যাত প্রধান খতম করেছে। সাধারণ নাগরিক হত্যা, নিরাপত্তা বাহিনীর ওপর হামলা সহ বেশ কয়েকটি ঘটনার সঙ্গে জড়িত ছিল এই জঙ্গি নেতা।

https://platform.twitter.com/widgets.js

কাশ্মীর পুলিশের আইজি বিজয় কুমার জানিয়েছেন, ওই সন্ত্রাসীর নাম সেলিম পারে। সে পাকিস্তানের বাসিন্দা। বিজয় কুমার জানান, ‘মোস্ট ওয়ান্টেড ও ভয়ংকর এই সন্ত্রাসীর খোঁজে বেশ কয়েকদিন ধরে অভিযান চলছিল।” বলে রাখি, লস্করের প্রধান জঙ্গি নেতা হল মুম্বাই হামলার মূল চক্রী জঙ্গি প্রধান হাফিজ সঈদ। বর্তমানে সে পাকিস্তানে বসে ভারতে জঙ্গি গতিবিধি চালায়।

অন্যদিকে, বর্ডার সিকিউরিটি ফোর্স (বিএসএফ) জম্মু বিভাগের আর্নিয়া সেক্টরে আন্তর্জাতিক সীমান্ত বরাবর অনুপ্রবেশের একটি প্রচেষ্টা ব্যর্থ করেছে। সেনারা একজন অনুপ্রবেশকারীকে নিকেশ করতে সফল হয়েছে। গত তিন দিনে পাকিস্তানের পক্ষ থেকে এটি দ্বিতীয় অনুপ্রবেশের ষড়যন্ত্র। এর আগে, এক সন্ত্রাসী কাশ্মীরের কুপওয়াড়ায় অনুপ্রবেশের চেষ্টা করেছিল, যাকে সেনার জওয়ান নিকেশ করেছি।

শনিবার, কুপওয়ারার কেরান সেক্টরে ‘BAT”-র (পাকিস্তান সেনাবাহিনীর বর্ডার অ্যাকশন টিম) আক্রমণের ষড়যন্ত্র ব্যর্থ করে একটি সন্ত্রাসবাদীকে এনকাউন্টারে নিকেশ করে সেনা। নিহত সন্ত্রাসী পাকিস্তানের বাসিন্দা। তার নাম মোহাম্মদ শাব্বির। হটলাইনে যোগাযোগ করে নিহত সন্ত্রাসীর লাশ ফেরত নিতে পাকিস্তান সেনাবাহিনীকে বলেছে ভারতীয় সেনা।

এছাড়াও, বিএসএফ আন্তর্জাতিক সীমান্তের জম্মু সেক্টর থেকে অস্ত্র উদ্ধার করেছে। সন্দেহ করা হচ্ছে যে, সেগুলো পাকিস্তান থেকে পাঠানো হয়েছিল। জম্মু সেক্টর থেকে বর্ডার সিকিউরিটি ফোর্সের কর্মীরা অস্ত্রের এই  চোরাচালান ব্যর্থ করেছে। সোমবার সকালে যখন সেনারা টহল দিচ্ছিল তখন ঝোপের মধ্যে লুকানো ব্যাগ দেখতে পাওয়া যায়। তল্লাশি চালিয়ে সেখান থেকে বিপুল পরিমাণ অস্ত্র উদ্ধার করা হয়। এরপরই এলাকায় তল্লাশি অভিযান শুরু হয়।

[ad_2]