Press "Enter" to skip to content

আগামী বছরই ভারতে আসতে পারে স্টারলিংক হাইস্পিড ইন্টারনেট, রইল বাৎসরিক খরচের পরিমাণ

[ad_1]

নয়া দিল্লিঃ খুব শীঘ্রই ভারতে (india) ইন্টারনেট পরিষেবা শুরু করার পরিকল্পনা করেছে ‘স্টারলিঙ্ক’ (Starlink)। ধনকুবের এলন মাস্ক (elon musk) যদি একবার ভারতে নিজের পসার জমিয়ে নিতে পারেন, তাহলে ধারণা করা হচ্ছে খুবই সমস্যায় পড়তে পারেন এশিয়ার ধনীতম ব্যক্তি মুকেশ আম্বানি (Mukesh Ambani)।

তবে অন্যান্য সমস্ত সংস্থাগুলোর সঙ্গে টক্কর থাকলেও, ধারণা করা হচ্ছে জিওর সঙ্গে লড়াইটা বেশ ভালোই হতে চলেছে এলন মাস্কের স্টারলিঙ্ক-র। তবে ইতিমধ্যেই ভারতে ইন্টারনেট পরিষেবা শুরুর তোড়জোড় শুরু করে দিয়েছে এলন মাস্কের স্টারলিঙ্ক। তবে লাইসেন্স না পাওয়ার কারণে এই পরিষেবা ভারতবাসীকে সাবস্ক্রাইব না করার আর্জি জানানো হয়েছে।

ভারতে পরিষেবা প্রদানের বিষয়ে স্টারলিংক-র ভারত শাখার ডিরেক্টর সঞ্জয় ভার্গব জানান, ‘কোন বড়সড় বাধার সম্মুখীন না হলে, ২০২২ সালের ৩১ শে জানুয়ারির মধ্যেই আমরা আশা করছি বাণিজ্যিক লাইসেন্স পেয়ে যেতে পারি। আর তা একবার পেয়ে গেলেও, আমরা পরিষেবা প্রদান শুরু করে দেব। তবে অনুমতি না পাওয়া পর্যন্ত আমরা পরিষেবার কাজ শুরু করব না’।

তবে ভারতে পরিষেবা শুরু করার টার্গেট নিলেও, এই সংস্থার ইন্টারনেট কানেকশনের দাম সম্পর্কে এখনও বিশদে কিছু জানায়নি সংস্থা। জানা গিয়েছে, ১ লক্ষ ৫৮ হাজার টাকা হতে পারে প্রথম বছর ইন্টারনেট কানেকশনের দাম। তারপরের বছর সেটি কমে গিয়ে দাঁড়াতে পারে ১ লক্ষ ১৫ হাজার টাকা। আবার শোনা যাচ্ছে যন্ত্রাংশ বোঝানোর জন্য সংস্থাটি এককালীন কিছু টাকা অর্থাৎ ৩৭ হাজার ৪০০ টাকা নিতে পারে। আবার ৭ হাজার ৪২৫ টাকা নিতে পারে প্রতিমাসে সার্ভিস চার্জ হিসাবে।

প্রসঙ্গত জানিয়ে রাখি, গ্রামীণ এলাকাকেই টার্গেট করছে স্টারলিঙ্ক। ২০২২ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে ২ লক্ষ ডিভাইস ইনস্টল করলেও, তার ৮০ শতাংশই গ্রামীণ এলাকায় বসানো হবে বলে জানা গিয়েছে। যার ফলে বেশি পরিমাণে গ্রাহক নিজেদের দিকে আকর্ষিত করতে সক্ষম হবেন এলন মাস্ক।

[ad_2]