Press "Enter" to skip to content

আফগানিস্তানের স্থিতি গুরুগম্ভীর! বড়ো পদক্ষেপ নিল ভারত সরকার


তালিবানের ি পাওয়া আতঙ্কের দরুন ের পরিস্থিতি বেকাবু হয়ে পড়েছে। তালিবান আফগানিস্তানের ৬ টি প্রান্তের বড়ো বড়ো রাজধানী শহর দখল করেছে। তাজা খবর অনুযায়ী, তালিবান আফগানিস্তানের মাজার-এ-শরীফ ঘেরাও করেছে। যারপর পরিস্থিতি আরো বিগড়েছে তথা বিশ্বের বড়ো বড়ো দেশ নিজেদের নাগরিকদের ফিরিয়ে আনার উপর জোর দিচ্ছে।

এসবের মধ্যে সরকারের তরফেও বড়ো ঘোষণা করা হয়েছে। ভারত সরকার আফগানিস্তানর নানা প্রান্তে থেকে ভারতীয়দের ফিরিয়ে আনার কাজ শুরু করেছে। মাজার-এ-শরীফ দূতা থেকে ভারতীয় কূটনীতিবিদ সহ অন্যান্য অফিসারদের ফিরিয়ে আনার জন্য বিমান পাঠানো হয়েছে। এর আগে তালিবানের উপদ্রবের জন্য গান্ধারে দূতাবাস বন্ধ করেছিল ভারত সরকার।

প্রসঙ্গত, আফগানিস্তানের পরিস্থিতি অত্যন্ত উদ্বেগজনক হয়ে উঠেছে। গনতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত আশরাফ গানির সরকারকে ফেলার জন্য তালিবান তাদের সমস্ত শক্তি লাগিয়ে দিয়েছে। চীন ও পাকিস্তান তালিবানকে পরোক্ষভাবে সমর্থন দিতে শুরু করেছে। অন্যদিকে স্পষ্ট জানিয়েছে যে তারা তালিবানকে উপড়ে ফেলতে আফগানিস্তানকে আর কোনোরকম সাহায্য করতে পারবে না। তালিবানকে হারাতে আমেরিকা থেকে এয়ার সাপোর্টের যে আশা ছিল তা এখন আর নে বললেই চলে।

আফগানিস্তনের সরকার ও বিশেষজ্ঞরা বলেছেন যে তাদের দেশের জনগণকে গৃহ যুদ্ধের জন্য তৈরি থাকতে হবে। আফগান সরকার বিভিন্ন দেশকে রিপোর্ট করে বলেছে যে তালিবান বেকাবু, তাই সমস্ত দেশ যেন নিজেদের নাগরিকদের নিয়ে যায়।

অন্যদিকে, আফগান সরকার ভারতের সাহায্য চেয়েছে। যেহেতু তালিবানের কাছে বায়ু সেনা নেই তাই ভারতের এয়ার ফোর্স এর সাহায্য চেয়েছে আফগানিস্থান। আসলে ভারতীয় বিমানের দ্বারা তালিবানের উপর লাগাতার বোম্বিং করতে চাই। তবে এক্ষেত্রে ভারত বায়ু সেনার সাহায্য পাঠাবে কিনা তা এখনও স্পষ্ট নয়।

যদিও সুরক্ষা বিশেষজ্ঞদের মতে এবার ভারত এগিয়ে না এলে আফগানিস্থানকে বাঁচানোর কোনও উপায় নেই। আর আফগানিস্থান তালিবানের নিয়ন্ত্রনে এলে তা ভারতের জন্য বিপদের কারন হয়ে দাঁড়াবে। এর মুল কারন চীন ভারতের উপর চাপ তৈরি করতে তালিবান নিয়ন্ত্রিত আফগানিস্থানকেই কাজে লাগাবে। এমন অবস্থায় ভারত নিজের বায়ু সেনার একটা অংশ আফগানিস্থানে প্রেরন করবে বলে মনে করা হচ্ছে।