Press "Enter" to skip to content

আফগানিস্তান দখলের পর এবার পাকিস্তানকে ভাঙার ছক তালিবানের, তৈরি করল ব্লু প্রিন্ট


নয়া দিল্লিঃ গোটা বিশ্বে ীদের আঁতুড়ঘর হয়ে ওঠা ের টুকরো হওয়ার ভিত্তি রাখা হচ্ছে আফগানিস্তানে। এই ভিত্তি অন্য কেউ না, পাকিস্তানেরই বন্ধু তালিবান রাখছে। এই তালিবান গত ১৫ আগস্ট আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলে কবজা জমিয়ে ওই দেশের সরকার ফেলে দিয়েছিল।

আর এবার তালিবানদের সঙ্গে মিলে পাকিস্তানের সবথেকে বড় তেহরিক-ই-তালিবান খাইবার পাখতুনখোয়া আর বালুচিস্তানের স্বাধীনতার রোড ম্যাপ তৈরি করেছে। আর এরজন্য তাঁরা টপ ৯টি কমান্ডরকে নিযুক্তও করেছে। বিগত কয়েকদিন ধরেই আফগান তালিবান আর তেহরিক-ই-তালিবানের সঙ্গে মুজাহিদ্দিনরা নতুন তৈরি করার আলোচনা চালাচ্ছে।

পাকিস্তান এখন নিজদের দেশের ভাঙার আশঙ্কায় ডুবে রয়েছে। আর এই আশঙ্কা পাকিস্তানের জন্য প্রযোজ্য। কারণ আফগানিস্তানে তালিবানের কবজা হওয়ার পরই তাঁরা তেহরিক-ই-তালিবানের জঙ্গি নেতা মৌলবি ফকির মহম্মদকে জেল থেকে মুক্তি দিয়ে দেয়। আর এরপরই পাকিস্তানের ্তা কয়েকগুণ বেড়ে যায়।

সূত্র অনুযায়ী, বালুচিস্তান আর খাইবার পাখতুনখোয়ার স্বাধীনতার নামে গোটা দেশে তাণ্ডব চালানোর দায়িত্ব ৯ জন জঙ্গিকে দিয়েছে। এরা সেই জঙ্গি, যাদের পাকিস্তানের ইশারায় আফগানিস্তানের পুরনো সরকার জেলে বন্দি করে রেখেছিল। কিন্তু আফগানিস্তানে ক্ষমতা পালটানোর পর জঙ্গিরা তেহরিক-ই-তালিবানের সংস্থাপক বৈতুল্লাহ মহসুদের ঘনিষ্ঠ বলে পরিচিত কুখ্যাত জঙ্গি কম্যান্ডার জোলিকে তালিবানরা জেল থেকে মুক্ত করে দেয়। পাশাপাশি কম্যান্ডার ওয়াকাস মহসুদ, হামজা মহসুদ, জরকাবী মহসুদ, জৈতুল্লাহ মহসুদ, হামিদুল্লাহ মহসুদ, ডক্টর হামিদ মহসুদ আর মজহর মহসুদকে মুক্তি দিয়েছে।

গোয়েন্দা সূত্র অনুযায়ী, তেহরিক-ই-তালিবানের উপপ্রধান মৌলবি ফকির মহম্মদ এই ৮ জঙ্গিকে পাকিস্তানের খাইবার পাখতুনখোয়া আর বালুচিস্তানের মিলিশিয়া সংগঠনের সঙ্গে যোগাযোগ করে বছরের পর বছর ধরে চলে আসা আজাদির দাবিকে আরও জোরালো করার কথা বলেছে। বলে দিই, তেহরিক-ই-তালিবানের যখনই বাকি জঙ্গি সংগঠনের সঙ্গে মিলে স্বাধীনতার দাবি জোরালো করে, তখনই ভারতের প্রতিবেশী দেশ পাকিস্তানে নরহত্যা শুরু হয়। আর এই নিয়েই পাকিস্তান এখন চরম আতঙ্কে রয়েছে।

প্রাপ্ত অনুযায়ী, বালুচিস্তানে দীর্ঘদিন ধরে আজাদির দাবি তোলা আল-খের-মারি আর তেহরিক-ই-তালিবানের উপপ্রধান মৌলবি ফকিরের সঙ্গে যোগাযোগ শুরু হয়ে গিয়েছে। ফকির জেল থেকে মুক্তি হায়র পরই পশতুনদের পাকিস্তান থেকে স্বাধীনতা দেওয়া আর বালুচিস্তানের স্বাধীনতা দাবি করার সমস্ত সংগঠনকে জয়ের আশা দিয়েছে। প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী, পাকিস্তানের এই দুই প্রান্তের স্বাধীনতার দাবি করা ৪টি জঙ্গি সংগঠন তেহরিক-ই-তালিবানের টপ আট জঙ্গির সঙ্গে যোগাযোগ করাও শুরু করে দিয়েছে।