Press "Enter" to skip to content

আমরা ২০ কোটি মানুষ একসঙ্গে লড়ব, এত সহজেই শেষ করতে পারবে না! বললেন নাসিরুদ্দিন শাহ

[ad_1]

মুম্বইঃ বলিউড ইন্ডাস্ট্রির খ্যাতিমান অভিনেতা নাসিরুদ্দিন শাহ প্রায়ই তার বক্তব্য নিয়ে চর্চায় উঠে আসেন। তিনি বহুবার ধর্মীয় ইস্যুতে তার মতামত উপস্থাপন করেছেন এবং এখন তিনি মুসলমানদের বিষয়ে একটি বক্তব্য দিয়েছেন, যা চর্চার বিষয়বস্তু হয়ে দাঁড়িয়েছে। নাসিরুদ্দিন শাহ মনে করেন, যারা মুসলমানদের গণহত্যার ডাক দিচ্ছে তারাই দেশে গৃহযুদ্ধের ডাক দিচ্ছে। সর্বশেষ সাক্ষাৎকারে তিনি এ কথা বলেছেন।

সাক্ষাৎকারে নাসিরুদ্দিন শাহকে ১৭ থেকে ১৯ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত ধর্ম সংসদ সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল, যে সম্পর্কে সুপ্রিম কোর্টের অনেক আইনজীবী শীর্ষ আদালতের প্রধান বিচারপতিকে একটি চিঠিও লিখেছিলেন। এই চিঠিতে, আইনজীবীরা বিদ্বেষমূলক বক্তব্যের স্বতঃপ্রণোদনা গ্রহণের আবেদন করেছিলেন। সাক্ষাৎকারে ধর্ম সংসদ নিয়ে শাহ বলেন, ‘যা ঘটছে তা দেখে আমি খুবই হতবাক হয়েছি। সম্ভবত তাঁরা জানে না তাঁরা কী নিয়ে কথা বলছে এবং কাদের আহ্বান করছে। এটা একভাবে গৃহযুদ্ধের মতো হবে।”

নাসিরুদ্দিন শাহ আরও বলেন, ‘আমরা ২০ কোটি মানুষ একসঙ্গে লড়াই করব। ভারত আমাদের ২০০ কোটি মানুষের জন্য মাতৃভূমি। আমরা এখানে জন্মেছি। আমাদের পরিবার এবং বহু প্রজন্ম এখানে রয়েছে এবং আমাদের মানুষও এই মাটিতে পাওয়া গিয়েছে। আমি নিশ্চিত যে এ ধরনের কোনো অভিযান শুরু হলে প্রবল বিরোধিতা হবে এবং এতে ব্যাপক ক্ষতিও হতে পারে।”

তার বক্তব্য অব্যাহত রেখে নাসিরুদ্দিন শাহ বলেন, ‘মুসলিমদের দ্বিতীয় শ্রেণীর নাগরিক বানানো হচ্ছে। এটা করে মুসলমানদের মধ্যে ভীতি সৃষ্টির চেষ্টা করা হচ্ছে কিন্তু মুসলমানরা হাল ছাড়বে না। মুসলমানরা এই পরিস্থিতির মুখোমুখি হবে। আমাদের বাড়ি ও মাতৃভূমিকে রক্ষা করতে হবে। আমাদের পরিবার ও সন্তানদের বাঁচাতে হবে।”

এ বিষয়ে সরকারকে নিয়েও প্রশ্ন তোলেন অভিনেতা। তিনি বলেন, যা কিছু করা হচ্ছে তা হল মুসলমানদের অসুরক্ষিত বোধ করানোর জন্য একটি সুনির্দিষ্ট উপায়। যেখানে ঔরঙ্গজেবের কথা বলা হয়, সেখান থেকেই এই সমস্ত কাজ শুরু হয়। বিচ্ছিন্নতাবাদ ক্ষমতাসীন দলের নীতিতে পরিণত হয়েছে। ধর্ম সংসদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা না নেওয়ায় তিনি বলেন, আমি জানতে চেয়েছিলাম এসব লোকেদের সঙ্গে কী হবে, কিন্তু সত্য হলো তাদের কিছুই হয়নি।

[ad_2]