Press "Enter" to skip to content

আমির খানের দুই হিন্দু বিবি থেকে হওয়া ৩ টি ছেলে মেয়ে মুসলিম কেন- প্রশ্ন তুললেন কঙ্গনা রানাউত

আমির খানের তালাক দেওয়ার প্রসঙ্গকে কেন্দ্র করে এখন আরো নতুন বিতর্ক উৎপন্ন হয়েছে। আসলে আমির খানের দুই হিন্দু বিবির সাথে ১৫ বছর ১৫ বছর করে সংসার করেছেন। এই সময় দুই পক্ষ থেকে যে ছেলে মেয়ে হয়েছে তাদের নাম যথাক্রমে জুনায়েদ খান, ইরা খান, আজাদ রাও খান। অর্থাৎ তিন জনেই আমির খানের মতোই ইসলাম ধর্মালম্বী। আর এই নিয়েই নতুন বিতর্ক উস্কে দিয়েছেন অভিনেত্রী রানাউত।

সম্প্রতি আমির খান তার বিবিকে তালাক দেওয়ার সিদ্ধান্তকে খোলাখুলি জানিয়েছেন। দেশকে অসহিষ্ণু মনে করা আমির খান এখন নিজের বিবি কিরণ রাও এর সাথে সাহিষ্ণুতা বজায় রেখে সংসার করতে রাজি নয়। কিরণ রাও এর আগেও আমির খান আরো এক হিন্দু মেয়েকে করেছিল। ওই পক্ষে আমির
খানের দুটি ছেলে মেয়ে রয়েছে। অন্যদিকে কিরণ রাও এর সাথে বিয়ের পর এক ছেলে হয়েছে।

লক্ষণীয় যে, টিভিতে জ্ঞানের বড়ো বড়ো ভাষণ দেওয়া আমির খান তার দুই পক্ষের ছেলে মেয়েদের ইসলাম ধর্মালম্বী হিসেবে পরিচয় দিয়েছে। অর্থাৎ দু দুটো বিবি হিন্দু হলেও তাদের থেকে জন্ম নেওয়া ৩ টি ছেলে মেয়ের আমির খান নিজের ধৰ্ম চাপিয়ে দিয়েছে। যা নিয়ে সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় জোর চর্চা শুরু হয়েছে।

এই পরিপ্রেক্ষিতে অভিনেত্রী মুখ খুলেছেন। কঙ্গনা আমির খানের তালাক দেওয়া প্রসঙ্গে বলেছেন, মুসলিমদের বিয়ে করলে ধৰ্ম কেন করতে হয়? এক সময় পাঞ্জাবে এক ছেলেকে শিখ অন্য ছেলেকে হিন্দু করার টেন্ড ছিল। এমন ঘটনা কেন হিন্দু মেয়ের সাথে মুসলিম ছেলের হলে দেখা যায় না?

কঙ্গনা বলেন, কেন এক ছেলেকে এক হিন্দু আরেক ছেলেকে মুসলিম তৈরির প্রথা নেই? আমির খান তার দুই পক্ষের হিন্দু বিবির ছেলে মেয়েকে ইসলাম কবুল করিয়েছেন। আমির খানের ৩ ছেলে মেয়ে মুসলিম, কেউ তাদের মায়ের ধর্মের অর্থাৎ হিন্দু নয়। আর এই কারণেই এমন প্রশ্ন তুলেছেন কঙ্গনা রানাউত।

প্রসঙ্গত, আমির খান তার সিনেমায় আজীবন স্ত্রীকে ভালোার দিব্যি খান কিন্তু বাস্তবে তার উল্টো। আমির খানের বাস্তব জীবনে তিনি একের পর এক বিয়ে করেন, বংশ বিস্তার করেন তারপর তালাক দিয়ে বেরিয়ে পড়েন অন্য শিকারের সন্ধানে। সোশ্যাল মিডিয়ায় এমনটাই মত প্ৰকাশ করছেন নেটিজনরা। অনেকে বলেছেন কিরণ রাও এর পর আমির খান পরবর্তী শিকারের খোঁজে বেরিয়ে পড়বেন।