Press "Enter" to skip to content

আরও একটি জায়গা থেকে মুছতে হবে রাজীব গান্ধীর নাম! জোরালো দাবি দেশ জুড়ে

নয়া দিল্লীঃ প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধী (Rajiv Gandhi) নামে নামাঙ্কিত ‘খেলরত্ন’ পুরস্কারের নাম বদলের পর থেকেই আরও একটি নামবদলের দাবি সরব হয়ে উঠেছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। উল্লেখ্য, কয়েকদিন আগেই এই আশ্চর্যজনক সিদ্ধান্ত নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর ()। প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধীর নামে নামাঙ্কিত খেলরত্ন পুরস্কারের নাম বদলে ‘মেজর ধ্যানচাঁদ (Major Dhyan Chand) খেলরত্ন পুরস্কার’ করে দেওয়া হয়েছে। আর এর পরেই কর্নাটকের নাগরহোলে অবস্থিত জাতীয় উদ্যানেরও নামবদলের আন্দোলন সরব হয়ে উঠেছে।

জানা গিয়েছে, ১৯৮৮ সালে রাজীব গান্ধীর শাসন চলাকালীন এই জাতীয় উদ্যানটির নাম রাখা হয় প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধীর নামে। কিন্তু কোডাগু জেলার বাসিন্দা বিনয় কায়াপান্ডা শুক্রবার Change.org- এ একটি অনলাইন ক্যাম্পেইন শুরু করেছেন এই উদ্যানটি নামবদলের জন্য। ইতিমধ্যেই একটি পিটিশনও দায়ের করেছেন তারা। তাদের লক্ষ্য ছিল ৭৫০০ স্বাক্ষর সংগ্রহ করা ইতিমধ্যেই সেক্ষেত্রে ৫২০০টি স্বাক্ষর জমা পড়েছে। তাদের দাবি একটি রাজনৈতিক দলকে খুশি করতেই উদ্যানের নাম বদলে প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী নামে রাখা হয়েছে।

১৯৮৮ সালে রাজীব গান্ধীর শাসন চলাকালীন পার্কটি নাগরহোল জাতীয় উদ্যান নামেই পরিচিত ছিল। কর্গ ওয়াইল্ডলাইফ সোসাইটির অবসরপ্রাপ্ত কর্নেল সিপি মুত্তান্না বলেন, “আমরা একে কখনও রাজীব গান্ধী জাতীয় উদ্যান বলিনি। সবাই একে নগরহোল বলছে। হঠাৎ একদিন, আমরা দেখতে পেলাম যে বোর্ড এবং সরকারের আদেশে নাম পরিবর্তন করা হয়েছে। ”

এই পিটিশনে আরও দাবি করা হয়েছে উদ্যানটির নামকরণ করা হোক কোদানদের মাদাপ্পা ক্যারিয়াপ্পার নামে। যিনি ভারতীয় সেনাবাহিনীর প্রথম মেজর ছিলেন। ক্যারিয়াপ্পার জন্ম ১৮৯৯ সালে, দেশের সেবায় নিজেকে নিয়োজিত করেছিলেন তিনি। আবেদনকারীদের দাবি তিনি রাজ্যের একজন কৃতি সন্তান, আর তাই তার নামেই জাতীয় উদ্যানের নামকরণ করা হোক। ইতিমধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়ায় আবেদনকারীরা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র ,স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী , পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রক এবং কর্ণাটকের বাসবরাজ বোম্মাইকে ট্যাগ করেছেন। এখন আগামী দিনে এ বিষয়ে কি সিদ্ধান্ত নেয় কেন্দ্র সরকার সেটাই দেখার।