Press "Enter" to skip to content

আলাপন বাঙালি, দময়ন্তী কি বহিরাগত ছিল? মমতা সরকারকে প্রশ্ন জনতার


কলকাতাঃ আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিয়ে বিস্তর জলঘোলা হয়েছে। রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যসচিবকে নিয়ে কেন্দ্র-রাজ্যের সংঘাত দিনদিন বেড়েই চলেছে। রাজ্যের তরফ থেকে অভি করে বলা হয়েছে যে, আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় (Alapan Banerjee) বাঙালি ছিল বলেই ি এবং কেন্দ্র তাঁকে সরাতে ব্যস্ত। বিজেপি পরাজয় করতে পারছে না বলেই, আলাপনকে বদলি করতে চাইছিল।

যদিও, কেন্দ্রের আশায় জল ঢেলে সোমবার নিজের পদ থেকে পদত্যাগ করেছেন আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়। আর এরপরেই ওনাকে নিজের মুখ্য উপদেষ্টা হিসেবে নিযুক্ত করার ঘোষণা করেছেন স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু এতে কি সমস্যা মিটল? কেন্দ্রের তরফ থেকে ইতিমধ্যে আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়কে শোকজ নোটিশ পাঠানো হয়েছে। যদিও, সেই নোটিশের কথা অস্বীকার করেছেন রাজ্য। কেন্দ্র আগামী তিনদিনের মধ্যে আলাপনের থেকে জবাব চেয়েছে।

আলাপন ইস্যুতে মুখ্যমন্ত্রীর রনং দেহি মনোভাব আবারও ফুটে উঠেছে। তিনি বুঝিয়ে দিয়েছেন যে, তিনি হারবার পাত্রী নন। সোমবার নবান্নে একটি প্রেস মিটিংয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন, ‘করেঙ্গে, লড়েঙ্গে, জিতেঙ্গে” তিনি এও বলেছিলেন যে, আমি ভয় পাই না। যতদূর লড়াই করার ক্ষমতা থাকবে আমি করে যাব। কিন্তু হার স্বীকার করব না।

তবে এরমধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়ায় রাজ্যের IPS অফিসার দময়ন্তী সেনকে (damayanti sen) নিয়ে হাজার হাজার পোস্ট করা হচ্ছে। সেই দময়ন্তী সেন, যার কাঁধে পার্কস্ট্রিট ধর্ষণ কাণ্ডের তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল। ২০১২ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে সুজেট জর্ নামের এক মহিলাকে খাস কলকাতায় চলন্ত গাড়িতে ধর্ষণ করা হয়েছিল। সেই ধর্ষণ কাণ্ডের তদন্ত করার জন্য দময়ন্তী সেন ময়দানে নেমেছিলেন। সেই কলকাতা পুলিশের -প্রধান পদে ছিলেন দময়ন্তী।

তখন একছবরও হয়নি রাজ্যে পরিবর্তন হয়েছে। হাজার সংগ্রাম করে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মসনদে বসেছেন। আর এরমধ্যেই এই ধর্ষণ কাণ্ড গোটা রাজ্য সমেত গোটা দেশ তোলপাড় করে দিয়েছিল। সেই সময় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পার্কস্ট্রিটের ধর্ষণ কাণ্ডকে সাজানো ঘটনা বলে আখ্যা দিয়েছিলেন। আরেকদিকে, তৃণমূলের নেতা-নেত্রীরাও ধর্ষিতার চরিত্র নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন।

এরপর পার্কস্ট্রিট ধর্ষণ মামলায় অভিযুক্তদের গ্রেফতার করেন পুলিশের গোয়েন্দা-প্রধান দময়ন্তী সেন। কিন্তু তখনই নাটকীয় ভাবে দময়ন্তী সেনকে রাজ্য পুলিশের ডিআইজি (প্রশিক্ষণ) পদে বদলি করা হয়। সরকারের এই সিদ্ধান্তে অনেকেই ক্ষোভে ফেটে পড়েছিলেন। একদিকে যখন পার্ক স্ট্রিট কাণ্ডের তদন্তের জন্য দময়ন্তী সেনের সুনাম হচ্ছিল চারিদিকে, তখনই আরেকদিকে সরকারের এই সিদ্ধান্ত মানুষের মধ্যে অনেক প্রশ্ন তুলে দেয়। যাইহোক সেসব এখন অতীত।

কিন্তু এখন প্রশ্ন উঠছে যে, ২০১২ সালের মুখ্যমন্ত্রী আর এখনকার মুখ্যমন্ত্রীর মধ্যে বিস্তর ফারাক কেন? বাঙালি আবেগ উস্কে দিয়ে আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়কে আগলে রাখা মুখ্যমন্ত্রী ২০১২ সালে বাঙালি IPS অফিসার দময়ন্তী সেনকে কেন বদলি করেছিলেন? পার্ক স্ট্রিট ধর্ষণ কাণ্ডে চাঞ্চল্যকর তথ্য তুলে ধরার জন্যই শাস্তি পেতে হয়েছিল IPS দময়ন্তীকে? সেই নিয়ে রয়েছে ধোঁয়াশা! যদিও এই ঘটনার সাত বছর পর দময়ন্তীকে আবারও কলকাতা পুলিশে ফিরিয়ে আনা হয়।