Press "Enter" to skip to content

ইউপির প্রাক্তন মন্ত্রীর কীর্তি, চতুর্থ বিবিকে তালাক দিয়ে ষষ্ঠ নিকাহ করার আগেই গ্রেফতার

নিজের বিয়ে নিয়ে সবসময় চর্চায় থাকা ের প্রাক্তন মন্ত্রী বশীর চৌধুরীকে গ্রেফতার করেছে। আগ্রার মন্টোলা থানার পুলিশ বশীরকে গ্রেফতার করেছে। বশীরের চতুর্থ স্ত্রী নগমা অভি করেছেন যে, বশীর ছয় নম্বর বিয়ে করতে যাচ্ছিল আমি বিরোধ করায় আমাকে তিন দেয়।

থানায় নগমার অভিযোগের পর বৃহস্পতিবার প্রাক্তন মন্ত্রী বশীর চৌধুরীকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এরপর তাঁকে আদালতে পেশ করা হয়, বিচারক তাঁকে জেল হেফাজতের নির্দেশ দেন। বশীরের অগ্রিম জামিনের আবেদনও খারিজ করে দেয় আদালত।

ষষ্ঠবার বিয়ে করতে যাওয়া বশিরের স্ত্রী নগমা অভিযোগ করেন যে, ২৩ জুলা তাঁর স্ী এক যুবতীকে বিয়ে করার প্ল্যান করেছিল। সেটা জানতে পারার পর আমি শ্বশুরবাড়ি গিয়ে বিরোধিতা করায় আমাকে বশীর তিন তালাক দেয়।

থানায় মামলা দায়ের হওয়ার পর প্রাক্তন মন্ত্রী বশীর পলাতক ছিল। আর সেই সময় সে আদালতে অগ্রিম জামিনের আবেদন জানায়। কিন্তু আদালত তাঁর আবেদন খারিজ করে দেয়। এরপর পুলিশ বশীরকে গ্রেফতার করে।

স্ত্রীকে নির্যাতন করে এর আগেও জেলের হাওয়া খেয়েছে বশীর। ২০১১ সালের ১১ নভেম্বর নগমাকে বিয়ে করেছিল বশীর। নগমা পরে জানতে পারে যে, সে বশীরের চতুর্থ স্ত্রী। নগমা বশীরের বিরুদ্ধে বধূ নির্যাতনের অভিযোগও করেছিল। এরপর বশীরকে গ্রেফতার করেছিল পুলিশ। যদিও পরে দুই পক্ষের মধ্যে সমাধান হয়ে যায়।

নগমা আরও একবার বশীরের বিরুদ্ধে তিন তালাক দেওয়ার অভিযোগ করেছেন। আর সেই অভিযোগের ভিত্তিতেই পুলিশ বশীরকে গ্রেফতার করে। আপাতত নগমা দুই সন্তানের সঙ্গে নিজের বাপের বাড়িতে থাকেন।

২০০২ সালে আগ্রা দক্ষিণ বিধানসভা কেন্দ্র থেকে জয় হাসিল করে মন্ত্রী হয়েছিলেন বশীর চৌধুরী। এরপর তিনি দল ছেড়ে দিয়ে নিজের আলাদা দল গঠন করেন। নিজের দলের টিকিটে কয়েকটি নির্বাচনেও লড়েছিলেন তিনি। কিন্তু হারের মুখ দেখোতে হয়। সবশেষে আগ্রার মেয়র নির্বাচনে নির্দলীয় প্রার্থী হয়েছিলেন তিনি।