Press "Enter" to skip to content

ইউরোপ নিষিদ্ধ করবে পাকিস্তানকে, ভারতের আহ্বানে বড় সিদ্ধান্ত নিতে চলেছে ফ্রান্স

[ad_1]

নয়া দিল্লিঃ সন্ত্রাস-বিরোধী সমর্থন, চীনে সংবেদনশীল প্রযুক্তি হস্তান্তরের অনন্য সম্ভাবনা এবং মানবাধিকারের ক্ষেত্রে তার দুর্বল রেকর্ডের কথা উল্লেখ করে ভারত ফ্রান্সকে পাকিস্তানের কাছে অস্ত্র বিক্রির উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করার জন্য এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছে। আপনাদের বলে দিই যে, ফ্রান্স এই মাসে ইউরোপীয় ইউনিয়নের কাউন্সিলের সভাপতিত্ব গ্রহণ করেছে এবং এটি জুন পর্যন্ত বজায় থাকবে। অতীতে, ফ্রান্স ভারতকে আশ্বস্ত করেছিল যে তারা পাকিস্তানে সংবেদনশীল অস্ত্র ব্যবস্থা হস্তান্তর করবে না এবং চীনের সাথে সীমান্তে অচলাবস্থার মধ্যে ভারতের পাশে থাকবে।

ইকোনমিক্স টাইমস-এ প্রকাশিত রিপোর্টে বলা হয়েছে, এই আহবান গত মাসে অনুষ্ঠিত প্রতিরক্ষা মন্ত্রী-পর্যায়ের আলোচনার সময় করা হয়েছিল, সেই সময় রাজনাথ সিং তার ফরাসি প্রতিপক্ষ ফ্লোরেন্স পার্লে-র সঙ্গে নয়া দিল্লিতে সাক্ষাৎ করেছিলেন। সেই বৈঠকে পাকিস্তানের মানবাধিকারের রেকর্ডও তুলে ধরেছিল ভারত। পাকিস্তানি গোয়েন্দা সংস্থাগুলি দ্বারা সাধারণ মানুষ, রাজনীতিবিদ, মানবাধিকার কর্মী এবং সাংবাদিকদের নিশানা করার প্রতিটি ঘটনা ফ্রান্সের সঙ্গে ভাগ করে নিয়েছিল ভারত। পাশাপাশি, দুই দেশের ঘনিষ্ঠ সম্পর্কের পরিপ্রেক্ষিতে পাকিস্তান দ্বারা ইউরোপীয় অস্ত্র প্রযুক্তি চীনের কাছে হস্তান্তরের সম্ভাবনা নিয়ে একটি বড় উদ্বেগও প্রকাশ করা হয়েছিল।

এ বিষয়ে ভারতের বিদেশমন্ত্রী এস. জয়শঙ্কর, তার ফরাসি প্রতিপক্ষ জিন-ইভেস লে ড্রিয়ানের সাথে কথা বলার পর রবিবার বলেছিলেন যে, “ইন্দো-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে ভারত এবং ফ্রান্সের মধ্যে সহযোগিতা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এই অঞ্চলে চীনের ক্রমবর্ধমান দৃঢ়তার পটভূমিতে ভারত এবং ফ্রান্স গত কয়েক বছর ধরে ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলে সহযোগিতা বাড়িয়ে চলেছে। এছাড়াও, ভারত ও ফ্রান্স ভারত মহাসাগর অঞ্চল, জলবায়ু পরিবর্তন এবং টেকসই উন্নয়নের মতো সহযোগিতার নতুন ক্ষেত্রগুলিতে একসঙ্গে কাজ করছে।”

যুদ্ধবিমান, যুদ্ধজাহাজ এবং সাবমেরিন সহ পাকিস্তানের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার সবচেয়ে বড় সরবরাহকারী হল চীন। এর পর দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে রাশিয়া, তবে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে রাশিয়া পাকিস্তানকে কোনও অত্যাধুনিক অস্ত্র ব্যবস্থা সরবরাহ করেনি। অন্যদিকে, ইতালি ইউরোপীয় ইউনিয়নের একমাত্র দেশ, যারা পাকিস্তানকে বিপুল পরিমাণে অস্ত্র সরবরাহ করে। অন্যান্য ইউরোপীয় দেশগুলি যারা সক্রিয়ভাবে অস্ত্র সরবরাহ করে তাদের মধ্যে রয়েছে সুইডেনও।

আর এই কারণেই, ভারত পাকিস্তানের দ্বারা সমর্থিত সন্ত্রাসী-সম্পর্কিত কার্যকলাপ এবং সন্ত্রাসবাদীদের দ্বারা জম্মু ও কাশ্মীরকে নিশানা করা সহ ইউরোপীয় দেশগুলির দ্বারা অস্ত্র বিক্রির সম্ভাবনার তথ্য শেয়ার করেছে। পাশাপাশি সন্ত্রাসীদের কাছ থেকে বিদেশি অস্ত্র উদ্ধারের ঘটনাও সামনে এসেছে। ভারতের এই অনুরোধে ফ্রান্স যদি পাকিস্তানকে অস্ত্র না দেয়, তাহলে সেটা হবে ইউরোপিয়ান সংঘের সরবরাহকারী দেশগুলোর জন্য একটি শিক্ষা এবং এটাকে ভারতের জয়ও বলা হবে।

[ad_2]