Press "Enter" to skip to content

ইজরায়েলকে শিক্ষা দিতে পুতিন-এরদোগানের ফোনালাপ, নেতানিয়াহুর মন্ত্রী বলল আগে ওদের শান্ত করে নিই



নয়া দিল্লীঃ ইজরায়েল আর ফিলিস্তিনের মধ্যে চলা খুনি সংঘর্ষ বিশ্ব যুদ্ধের রূপ নিয়ে নিতে পারে। যেভাবে আর আর রাশিয়া এই ইস্যুতে নজর রাখছে সেটা দেখে বিশ্ব যুদ্ধের আশঙ্কা সৃষ্টি হয়েছে। তুরস্কের এরদোগান এই বিষয়ে ের সঙ্গে কথা বলেছে। এরদোগান পুতিনকে জানিয়েছে যে, ফিলিস্তিনের প্রতি ইজরায়েলের এই মনোভাবের জন্য তাঁকে শিক্ষা দেওয়া উচিৎ।

এরদোগান রাশিয়ার রাষ্ট্রপতিকে জানিয়েছে যে, সম্প্রদায়কে ইজরায়েলকে আরও কড়া এবং নতুন কিছু শিক্ষা দেওয়া উচিৎ। তুর্কির রাষ্ট্রপতির সূচনা দফতর অনুযায়ী, দুই দেশের নেতারা বুধবার ফোনে জেরুসালেমের বিবাদিত অঞ্চল নিয়ে আলোচনা করে। এরদোগান তখন বলে, ‘আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের উচিৎ ইজরায়েলকে শিক্ষা দেওয়া উচিৎ। ইজরায়েলকে কড়া বার্তা দিতে রাষ্ট্র সংঘের সুরক্ষা পরিষদকে অবিলম্বে হস্তক্ষেপ করা উচিৎ।

তুর্কি দ্বারা জারি বয়ানে বলা হয়েছে যে, রাষ্ট্রপতি এরদোগান রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি পুতিনকে পরামর্শ দিয়ে বলেছেন ফিলিস্তিনিদের রক্ষার জন্য আন্তর্জাতিক সুরক্ষা বাহিনীর দিকটা ভেবে দেখতে। আর এর মধ্যে গাজার স্্থ্য মন্ত্রালয় জানিয়েছে যে, সেখানে ১৬ টি বাচ্চা আর ৫ জন মহিলা সমেত মৃতের সংখ্যা ৬৫ পর্যন্ত পৌঁছে গিয়েছে। আর ৮৬ জন বাচ্চা এবং ৩৯ জন মহিলা সমেত কমপক্ষে ৩৬৫ জন আহত হয়েছে।

আরেকদিকে, ইজরায়েলের পাল্টা হামলায় হামাসের গাজা সিটি কম্যান্ডার নিকেশ হয়েছে। হামাস নিজেই এই কথা জানিয়েছে। রিপোর্টে বলা হয়েছে যে, ২০১৪-র গাজা যুদ্ধের পর বুধবার ইজরায়েলের হামলায় মারা যাওয়া বসম ইসা হামাসের এখনও পর্যন্ত সবথেকে বড় কম্যান্ডার ছিল। আরেকদিকে, ইজরায়েলের প্রতিরক্ষা মন্ত্রী স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন যে, ইজরায়েলের পাল্টা হামলা বন্ধ হবে না। তিনি জানিয়েছেন, আমরা ততক্ষণ থামছি না যতক্ষণ না শত্রুরা পুরোপুরি শান্ত হয়ে যাচ্ছে। ওঁরা শান্ত হওয়ার পর শান্তি কায়েম করার জন্য কথাবার্তা চলতে পারে।