Press "Enter" to skip to content

‘ইহুদি” ইজরায়েলের বিরুদ্ধে এক হবে ৫৭ টি ‘মুসলিম” দেশ, ডাকা হল এমার্জেন্সি বৈঠক



নয়া দিল্লীঃইজরায়েল আর হামাসের মধ্যে যুদ্ধের আশঙ্কা বেড়েই চলেছে। সন্ত্রাসবাদী সংগঠন হামাস ইজরায়েলের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য সীমান্তে বিপুল সংখক সেনা পাঠিয়েছে, এবং আরও ৯ হাজার সেনাকে তৈরি থাকতে বলেছে। আর এরই মধ্যে মুসলিম দেশগুলোর সংগঠন ‘অর্গানাইজেশন অফ ইসলামিক কো-অপারেশন” ১৬ মে ৫৭ সদস্যের দেশের বিদেশ মন্ত্রীদের বৈঠক ডেকেছে। OIC টুইট করে জানিয়েছে যে, সৌদি আরবের অনুরোধে এই বৈঠক ডাকা হয়েছে।

https://platform.twitter.com/widgets.js

আরেকদিকে, ইজরায়েলের বিরুদ্ধে মিডিয়ার ব্যবহার করে বহু হামাসের জঙ্গিদের ফাঁসিয়ে নিকেশ করার অভিযোগ উঠেছে। উল্লেখ্য, প্যালেস্তাইনের সঙ্গে জারি যুদ্ধে ইজরায়েল লাগাতার সংগঠন হামাসের উপর হামলা করে চলেছে। আর এরই মধ্যে ইজরায়েলের সাংবাদিকরা জানান যে, ইজরায়েল সেনা মিডিয়ার ব্যবহার করে হামাসের জঙ্গিদের নিজেদের জালে ফাঁসায়। আর এই কারণেই হামাসের বহু জঙ্গি মারা যায়।

প্রসঙ্গত, ইজরায়েলি সেনা মিডিয়ার জন্য বয়ান জারি করে বলেছিল যে, ইজরায়েল আকাশ আর স্থলপথে প্যালেস্তাইনের উপর হামলা করছে। এই বয়ানে গুজব ছড়িয়ে যায় যে, ইজরায়েল গাজার উপর স্থলপথে হামলা করেছে। কয়েকটি সংবাদমাধ্যম এও বলে দিয়েছিল যে, হামলা শুরু হয়ে গিয়েছে।

এরপর ইজরায়েলি সেনা স্পষ্ট জানায় যে, গাজার সীমান্তের ভিতরে কোনও সেনা নেই তাঁদের। কিন্তু ততক্ষণে বড়বড় মিডিয়া এটা ছেপে দিয়েছিল যে, ইজরায়েল স্থলপথে আক্রমণ শুরু করেছে। আর সেই গুজব ছড়িয়ে পড়ার পর হামাসের জঙ্গিরা একটি সুড়ঙ্গের মধ্যে লুকিয়ে পড়ে। সেনা জানায় যে, ইজরায়েল ১৬০ টি যুদ্ধ বিমান দিয়ে ৪০ মিনিট ওই সুড়ঙ্গে বোমাবাজি করে। ইজরায়েলের একটি সংবাদমাধ্যমের জার্নালিস্ট হেলর জানান যে, ওই ৪০ মিনিটে হামাসের অনেক জঙ্গি মারা যেতে পারে।

যদিও, ইজরায়েল সেনা এই খবরকে ‘ভ্রান্তি” বলে উড়িয়ে দেয়। কিন্তু ইজরায়েলের এক সাংবাদিক জানান যে, হামাসে জঙ্গিদের নিজেদের জালে ফাঁসাতে ইজরায়েল সংবাদমাধ্যমের ব্যবহার করে, আর এই কারণে হামাসের ডজন খানেক জঙ্গি মারা যায়। সাংবাদিক হেলর জানান, আমরা মিথ্যে বলিনি। ওঁরা আমাদের সঙ্গে ছলনা করেছে। ওঁরা চালাকি করে সফলতা অর্জন করেছে।