Press "Enter" to skip to content

উনি ২ কোটি ৮৭ লক্ষ মানুষের মুখ্যমন্ত্রী হলে, আমিও ২ কোটি ২৮ লক্ষ মানুষের বিরোধী দলনেতাঃ শুভেন্দু


নন্দীগ্রামঃ কোভিডের সাথে সাথেই ফের একবার ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের দাপটে বিধ্বস্ত বাংলা। ওড়িশায় ল্যান্ড ফল হলেও ভরা কোটালের আবহে বাংলাতেও যথেষ্ট তান্ডব পড়েছে ইয়াস। যার জেরে দুই ২৪ পরগনা ও দুই ের মানুষ এখন রীতিমতো অসহায়। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে লক্ষ লক্ষ টাকার ফসল। গৃহহীন হয়ে পড়েছেন বহু মানুষ। ইতিমধ্যেই রাজ্য ের তরফ থেকে শুরু করা হয়েছে দুয়ারে ত্রান প্রকল্প। তবে আমফান বা ফনির মতো রাজ্য সরকার এবার মানুষের পাশে নেই এমনটাই বক্তব্য নন্দীগ্রামের বিধায়ক তথা রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীর।

https://platform.twitter.com/widgets.js

এদিন পূর্ব মেদিনীপুরের ইয়াস বিধ্বস্ত মানুষদের হাতে সরাসরি ত্রাণ পৌঁছে দিতে খেজুরিতে পৌঁছেছিলেন শুভেন্দু। তিনি আগেই জানিয়েছিলেন এখন তিনি মন্ত্রী নন, তাই আগের মতো ততটা করতে পারবেন না। তবে মানুষের পাশে থাকবেন। সেই দৃশ্যই আজও দেখা গেলো একবার। খেজুরিতে আজ মানুষের হাতের ত্রাণ, ত্রিপল, শুকনো খাবার তুলে দেন শুভেন্দু। আর সাথে সাথেই রাজ্য সরকারকেও একহাত নিলেন তিনি। তার বক্তব্য, আমফান এবং ফনির সময় যেভাবে মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছিল রাজ্য সরকার। এবার সে ভাবে মানুষের পাশে নেই তারা। ইয়াস আসার আগেই রাজ্যকে ৪০০ কোটি টাকা অগ্রিম দিয়েছিল কেন্দ্র। ঝড় বিধ্বস্ত পরিস্থিতি ঘুরে দেখে ফের হাজার কোটি টাকা দেওয়া হয়েছে ওড়িশা সহ বাংলাকে। তবে সেই টাকাও আমফানের মতোই মাঝপথে উড়ে যাবে বলেই দাবি করেন শুভেন্দু।

https://platform.twitter.com/widgets.js

সাথে সাথে মানুষকে সতর্ক করে তিনি বলেন, পঞ্চায়েত এবং বিডিও অফিস গুলিতে ড্রপবক্স খোলা হয়েছে। আবেদন করে রিসিভ কপি অবশ্যই নিজের কাছে রাখবেন। নইলে হয়তো বলবে আবেদন করেনি। ইয়াস পর্যবেক্ষণের বৈঠকে তাঁর উপস্থিতিতে মুখ্যমন্ত্রীর বেঁকে বসার প্রসঙ্গে শুভেন্দু অধিকারী বলেন, ‘উনি যদি ২ কোটি ৮৭ লাখ মানুষের মুখ্যমন্ত্রী হয়ে থাকেন। আমিও ২ কোটি ২৮ লাখ মানুষের বিরোধী দলনেতা।”

https://platform.twitter.com/widgets.js

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, এর আগেও কেন্দ্র সরকারের দেওয়া ৪০০ কোটি টাকার হিসেব চেয়েছিলেন’ শুভেন্দু অধিকারী। দলের রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষও জানিয়েছিলেন, সরাসরি মানুষের হাতে যেন টাকা পৌঁছে দেওয়া হয়। না হলে দুর্নীতির সম্ভাবনা রয়েছে। এদিন একই পথে হাঁটলেন শুভেন্দুও। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, গতবছর আমফানের সময়ও শাসকদলের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগে সরব হয়েছিল বিজেপি। তাদের কথায় কেন্দ্র সরকারের পাঠানো ত্রাণের টাকা নয়ছয় করেছিল তৃণমূল। ফের একবার আজ সেই প্রসঙ্গ টেনে এনে আজ শাসক দলকে বিঁধলেন শুভেন্দু অধিকারী।