Press "Enter" to skip to content

এ আর রেহমানকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানিয়ে কট্টরপন্থীদের রোষের মুখে মীর, দিলেন সমালোচনার যোগ্য জবাব


গতকাল ছিল ভারত তথা বিশ্বের সঙ্গীত শিল্পীদের মধ্যে একজন () এর জন্মদিন। ১৯৬৭ সালে ৬ই জানুয়ারি হিন্দু ঘরে জন্মেছিলেন এ আর রেহমান। ওনার মা বাবা ওনার নাম রেখেছিল দিলীপ কুমার। পড়ে তিনি ইসলাম গ্রহণ করে নিজের নাম পরিবর্তন করে রাখেন আল্লাহ রাক্ষা রেহমান। ভারত তথা বিশ্বের সঙ্গীত জগতে উনি ওনার গান আর মিউজিক দিয়ে এক বড় ছাপ ফেলে দিয়েছেন। ওনার গাওয়া বন্দেমাতরম গান শুনলে এখনো প্রতিটি ভারতীয়র গায়ে কাঁটা দিয়ে ওঠে।

https://connect.facebook.net/nl_NL/sdk.js#xfbml=1&version=v5.0

সেদিন যখন ঈশ্বরের পাশে বসেছিলাম… 🥰😇Happy Birthday A.R. Rahman 🙏❤️

Geplaatst door op Maandag 6 januari 2020

ভারতের ছোট বড় অনেক শিল্পীই ওনাকে নিজের আদর্শ আর ভগবান বলে মনে করে। আর সেই সুত্রেই টলিউডের বিখ্যাত রেডিও জকি তথা কমেডিয়ান (Mir Afsar Ali) ওনাকে গতকাল জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানিয়েছিলেন। ডিডি বাংলায় খাস খবর পরিবেশনা করে নাম পাওয়া মীর জি বাংলায় মীরাক্কেল করে খ্যাতি পান। ওনার ভক্ত এপার বাংলা থেকে ওপার বাংলা সর্বত্রই ছড়িয়ে আছে।

গতকাল রেহমানকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা বার্তা দিয়ে মীর তাঁর অফিসিয়াল ফেসবুকে পেজে ক্যাপশন দেন ‘সেদিন যখন ঈশ্বরের পাশে বসেছিলাম… 🥰😇 Happy Birthday A.R. Rahman” । ব্যাস এতেই চটে লাল ধর্মীয় মৌলবাদীরা। কেন মীর একজন সাধারণ মানুষকে ঈশ্বরের সাথে তুলনা করছেন? এই নিয়ে মীরকে অনেক উপদেশ দেন ফেসবুক ইউজারেরা। বেশিরভাগ উপদেশ আসে ওপার বাংলা থেকে।

কেউ বলে, ‘স্যার আমি আপনার পাগল ফ্যানদের মধ্যে একজন। কিন্তু এি ক্যাপশন আপনার কাছ থেকে আশা করিনি।” আবার কেউ বলে, ‘মীর মুসলিমই নন।” যদিও এটা প্রথম না, এর আগেও অনেকবার মীর মৌলবাদীদের আক্রমণের শিকার হয়েছিলেন। এর আগে নিজের বাবাকে ভগবানের থেকেও উর্ধে বলে কট্টরপন্থীদের রোষের মুখে পড়েছিলেন মীর।

সেইবারেও মীর যোগ্য জবাব দিয়েছিলেন, এবারেও মীর কট্টরপন্থীদের যোগ্য জবাব দিয়েছেন। যদিও মৌলবাদীদের মুখ বন্ধ করা মীর কেন! ভগবানেরও সাধ্যি নেই। তাঁরা তাঁরা নিজেদের মতো অযৌক্তিক কথা বলে মীরকে আক্রমণ করতে থাকে। কিন্তু মীরের নো পরোয়া অ্যাটিটিউডের কারণে তাঁরা আর পাত্তা না পেয়ে শেষে চুপ হয়ে যায়।