Press "Enter" to skip to content

”করোনা রুখতে শেষ মাইলে পাড়ি উত্তর প্রদেশের” যোগী সরকারের বাড়ি বাড়ি অভিযানের প্রশংসায় WHO


নয়া করোনার সংক্রমণ দ্রুত গতিতে ছড়িয়ে পড়ার মধ্যে ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশন () যোগী সরকারের ডোর-টু-ডোর অভিযানের করল। ৭ মে WHO জানায় যে, কীভাবে যোগী সরকার মহামারীর সময়ে আবশ্যক পদক্ষেপ নিয়ে গ্রাউন্ড লেভেলে কাজ করেছে। WHO জানিয়েছে যে, যোগী সরকার ১ লক্ষ ৪১ হাজার ৬১০ টিম এই কাজে লেগেছে। এই টিমে ২১ হাজার ২৪২ জন সুপারভাইজার আছেন, যাদের কাজ হল এই অভিযানে কোনও গ্রামীণ এলাকা যেন না বাদ পড়ে সেটা দেখা।

https://platform.twitter.com/widgets.js

৫ মে থেকে এই অভিযান গ্রামীণ এলাকায় শুরু হয়। বাড়ি বাড়ি গিয়ে গ্রামবাসীদের র‍্যাপিড টেস্ট করানো হয় আর রিপোর্ট পজেটিভ এলে তাঁদের হাতে মেডিসিন কিট তুলে দিয়ে করোনার সঙ্গে কীভাবে লড়তে হবে সেই পরামর্শ দেওয়া হয়। এছাড়াও যারা করোনা রোগীদের সংস্পর্শে এসেছে তাঁদেরও টেস্ট করানো হয়।

WHO জানায় সরকারকে তাঁরা িং আর মাইক্রো প্ল্যানিংয়ে সহায়তা করছে। এছাড়াও তাঁদের ফিল্ড অফিসার গ্রাউন্ড লেভেলে পর্যবেক্ষণ করছে। এর পাশাপাশি রিয়েল টাইম ফিডব্যাক দিয়ে কাজের মান সুনিশ্চিত করা হচ্ছে। WHO-র রিপোর্টে জানানো হয় যে, প্রথম দিন ফিল্ড অফিসাররা ২ হাজারের বেশি সরকারি টিমের পর্যবেক্ষণ করেন এবং কমপক্ষে ১০ হাজার বাড়িতে পৌঁছে যান।

৫ মে থেকে শুরু হওয়া এই অভিযানে টিম ৭৫ জেলার ৯৭ হাজার ৯৪১ গ্রামে যাবে। প্রতিটি টিমে দুজন করে সদস্য থাকবে যারা গ্রামে গঞ্জে পৌঁছে করোনার লক্ষ্মণ থাকা রোগীদের পরীক্ষা করবেন আর রিপোর্ট পজেটিভ এলে তাঁদের আইসোলেট করার বন্দোবস্ত করবেন। এছাড়াও তাঁদেরও পরীক্ষা করা হবে যারা সংক্রমিত ব্যক্তির সংস্পর্শে এসেছিল।