Press "Enter" to skip to content

কালো কাপড় দিয়ে ঢেকে দেওয়া হল দুর্গাপুজোর প্যান্ডেল! অমানবিক কাণ্ডের সাক্ষী হয়ে রইল গোটা রাজ্য

রাঁচিঃ দুর্গা পুজো বাঙালীর শ্রেষ্ঠ উৎসব। আর দেশে কোনায় কোনায় থাকা প্রতিটি বাঙালিই এই উৎসব পালন করে। সেরকম ভাবে পশ্চিমবঙ্গের প্রতিবেশী রাজ্য ঝাড়খণ্ডেও কিছু কিছু যায়গায় দুর্গা পুজো হয়। কিন্তু এবার করোনা ভাইরাসের কারণে গোটা দেশের কোথাও দুর্গা পুজো প্রতিবারের মতো আর ধুমধাম করে পালিত হচ্ছে না। একটু আধটু যাও ধুমধাম হচ্ছিল, ঝাড়খণ্ডের কংগ্রেস সরকার সেটাতেও বাঁধা সৃষ্টি করেছে।

ঝাড়খণ্ডের রাজধানী রাঁচি রেলওয়ে স্টেশনের পাশে এক দুর্গা পুজো নিয়ে এমন কিছু মামলা সামনে এসেছে, যেটা শুনে প্রতিটি বাঙালীর মন ভেঙে গিয়েছে। সেখানে স্থানীয়রা বহু বছর ধরেই দুর্গা পুজো করে আসে। এবছরেও করোনার গাইডলাইন মেনে আর সরকারের নির্দেশ অনুযায়ী সেখানে দুর্গা পুজো পালিত হচ্ছে। কিন্তু ঝাড়খণ্ডের হেমন্ত সোরেন সরকারের হয়ত সেটা ভালো লাগেনি। রাঁচি প্রশাসন গতকাল ২২ অক্টোবর প্যান্ডেলে পৌঁছে অত্যাধিক ভিড় হওয়ার আশঙ্কা জাহির করে গোটা প্যান্ডেল কালো কাপড় দিয়ে ঢেকে দেওয়ার নির্দেশ দেয়।

প্রশাসনের নির্দেশের পর রাঁচি রেলওয়ে স্টেশন দুর্গা পুজো কমিটি বাধ্য হয়ে কালো কাপড় দিয়ে প্যান্ডেল ঢেকে দেয়। এরপর খবর ছড়িয়ে পড়তেই শুরু হয় বিতর্ক। স্থানীয় বিজেপি নেতার মাধ্যমে এই খবর ঝাড়খণ্ডের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বাবুলাল মারান্ডির কানে পৌঁছে যায়। এরপর তিনি তৎক্ষণাৎ কাপড় দিয়ে ঢাকা দুর্গা মণ্ডপের ছবি ট্যুইটারে পোস্ট করে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সোরেনের বিরুদ্ধে তোপ দাগেন।

https://platform.twitter.com/widgets.js

বাবুলাল মারান্ডির প্রতিবাদের পর নড়েচড়ে বসে প্রশাসন। এরপর প্রশাসনের তরফ থেকে আরকটি আদেশ জারি করে এক ঘন্টার মধ্যে প্যান্ডেলের উপর থেকে কালো কাপড় হটাতে বলা হয়। বিতর্ক থেকে রক্ষা পেতে প্রশাসন এরপর প্যান্ডেলে ব্যারিকেডিং করায়।

https://platform.twitter.com/widgets.js