Press "Enter" to skip to content

খড়দহে কালী মূর্তি ভাঙচুর, অভিযুক্তদের ধরে গণধোলাই দিল জনতা


খড়দহঃ এই তো পুজোর সময় প্রতিবেশী দেশ ে (Bangladesh) অবমাননার গুজব ছড়িয়ে মর্মান্তিক কাণ্ড ঘটিয়ে দিয়েছিল মৌলবাদীরা। শয়ে শয়ে হিন্দুদের মন্দিরে হামলা, পুজো মণ্ডপে ভাঙচুর এমনকি হিন্দুদের বাড়িতেও হামলা চালিয়েছিল তাঁরা। পরে পুলিশের তদন্তে উঠে আসে যে, যে সংখ্যালঘুদের বিরুদ্ধে ধর্ম অবমাননার অভিযোগ করা হয়েছিল, তাঁদের আসলে কোনও দোষই নেই।

আপাতত বাংলাদেশ কিছুটা হলেও শান্ত। তবে সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তা শেখ হাসিনার দেশে সবথেকে বড় ইস্যু হয়ে দাঁড়িয়েছে। অনেকেই মনে করেছিল, বাংলাদেশের অশান্তির আঁচ হয়ত এই দেশেতেও ছড়িয়ে পড়বে। কিন্তু, আদতে তা হয়নি। তবে থেকে কিছু বিক্ষিপ্ত ঘটনা সামনে এসেছে। অন্যদিকে, পশ্চিমবঙ্গ প্রশাসন সজাগ থাকায় বাংলাদেশের ঘটনার পরিপেক্ষিতে কিছু হয়নি।

তবে, এরই মধ্যে আবার এরাজ্যের খড়দহ থেকে হিন্দুদের পুজো মণ্ডপে ভাঙচুর চালানো এবং মায়ের মূর্তি ভেঙে ফেলার অভিযোগ উঠেছে। কদিন আগেই খড়দহে ভোট সম্পন্ন হয়েছে। ফলাফলও ঘোষণা হয়ে গিয়েছে। বর্তমানে রাজ্যের মন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায় খড়দহের নতুন বিধায়ক হয়েছেন। আর ভোটাভুটি মিটতেই খড়দহ থেকে ষড়যন্ত্র মাফিক সম্প্রীতি নষ্ট করার ঘটনা সামনে আসতেই চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে।

জানা গিয়েছে যে, খড়দহ বিধানসভার রহড়া থানার অধীনে সিঙেরবের গ্ে কালীপূজার মণ্ডপে কয়েকজন যুবক ষড়যন্ত্র মাফিক অশান্তি ছড়ানোর জন্য হামলা চালায়। তাঁরা দেবী মূর্তিও ভাঙচুর করে। তবে স্থানীয়রা তাঁদের হাতেনাতে ধরে ফেলে এবং গণধোলাইও দেয়। ঘটনার কিছু ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরালও হচ্ছে। এই ঘটনার পর এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে।

স্থানীয়রা অভিযুক্তদের বাইকও আটক করেছিল। আর সেই বাইকের মালিকের নাম বের করে অভিযুক্তদের সনাক্তও করা হয়েছে। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকার মানুষের মধ্যে ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে। তাঁরা দোষীদের উপযুক্ত শাস্তিরও দাবি করেছে।