Press "Enter" to skip to content

চার্চের আড়ালে পতিতালয়! পুলিশের তৎপরতায় পর্দাফাঁস, গ্রেফতার পাদরি সহ ৫

তামিলনাড়ুতে ান্তরকরণের গ্যাংয়ের পাশাপাশি যৌন চক্রের হদিশ নিয়ে বেশ কিছুদিন ধরে গোপনে অভিযান চালাচ্ছিল। শেষমেশ সে অভিযান কিছুটা হলেও সাফল্য লাভ করেছে‌ তাঁরা।

তামিলনাড়ু পুলিশ একটি গির্জার আড়ালে গোপনে যৌনচক্র চালানোর জন্য লাল এনএস শাইন সিং নামে একজন যাজকসহ চারজন মহিলাকে গ্রেপ্তার করেছে। ফেডারাল অফ ইন্ডিয়ার বিশপ লাল এনএস শাইন সিংয়ের বিরুদ্ধে চার্চ থেকে যৌনচক্র চালানোর অভিযোগ রয়েছে।

সূত্রের খবর, কন্যাকুমারী জেলার এসটি মঙ্গাদুর জ্যোতি নগরে অবস্থিত ভারতের ডায়োসিস অফ ক্রাইস্ট অ্যাংলিকান চার্চের সাথে যুক্ত ফেডারেল চার্চ অফ ইন্ডিয়ার দপ্তরে বুধবার তামিলনাড়ু পুলিশ অভিযান চালিয়েছিল। পুলিশের কাছে আগে থেকেই তথ্য ছিল, যে অনেক পুরুষ এবং প্রায়শই বিলাসবহুল গাড়ীতে চেপে এই চার্চ চত্বরে আসা যাওয়া করেন।

সূত্র মারফত জানা গিয়েছে, ফেডারেল চার্চ অফ ইন্ডিয়া কন্যাকুমারী এলাকার অন্যতম বৃহত্তম গীর্জা। বিশপ লাল এন এস শাইন সিংহ এই চার্চের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রেসিডেন্ট। প্রাথমিক তদন্তে জানা যায়, যে চার্চ কর্তৃপক্ষ এই পতিতালয় চালানোর জন্য এই জায়গাটি ব্যবহার করেছিল। বিভিন্ন তথ্য পুলিশের হাতে আসতেই পুলিশ চার্চ চত্বরে অভিযান চালিয়ে বেশ কয়েকজন মহিলা এবং পুরুষসহ লালকে হাতেনাতে ধরে।

গ্রেপ্তার হওয়া মহিলাদের মধ্যে একজন ১৯ বছর বয়সী মেয়েও ছিল। সে জানিয়েছে যে তার নিজের মা তাকে যৌনব্যবসায় নামতে বাধ্য করেছিল।পুলিশ চার মহিলা সহ সাতজনকে গ্রেপ্তার করেছে এবং যাজক লাল এন এস শাইন সিংকেও পুলিশি হেফাজতে রাখা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদের সময় যাজক লাল শাইন সিং এবং শিবিন নামে অপর এক ব্যক্তি স্বীকার করেছেন যে তারা যৌনচক্রের কাজে জড়িত ছিল। এদিকে তামিলনাড়ু পুলিশ যাজক এবং ছয়জনের বিরুদ্ধে নিতিরভিলাই পুলিশ স্টেশনে মামলা দায়ের করেছে।