Press "Enter" to skip to content

চীনা অ্যাপ টিকটকের মতোই অবস্থা হবে ইনস্টাগ্রাম রিলের, ঘোর চিন্তায় Meta

[ad_1]

নয়া দিল্লিঃ ফেসবুক ইনস্টাগ্রামের একটি নতুন সংস্করণ ‘ইনস্টাগ্রাম কিডস” লঞ্চ করা স্থগিত করেছে। ফেসবুকের গ্লোবাল অফ সিকিউরিটি এন্টিগন ডেভিসকে মার্কিন প্রতিনিধিদের একটি কমিটির কাছে হাজিরা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। কিশোর-কিশোরীদের ওপর সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাপের ক্রমবর্ধমান নেতিবাচক প্রভাব নিয়ে ফেসবুককে প্রশ্ন করবে সেই কমিটি।। ইনস্টাগ্রামের কারণে বিশেষ করে কিশোরী মেয়েরা নেতিবাচকভাবে প্রভাবিত হচ্ছে, তাই মার্কিন পার্লামেন্ট বিষয়টি আমলে নিয়েছে।

মিডিয়া রিপোর্ট অনুযায়ী, ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল সম্প্রতি ফেসবুকের অন্তর্বর্তী পর্যালোচনা প্রতিবেদনের উপর ভিত্তি করে একটি বিশদ প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে, যা কিশোরীদের উপর ইনস্টাগ্রামের প্রভাবের ব্যাখ্যা করেছে। রিপোর্টে বলা হয়েছে যে, মেয়েদের শারীরিক গঠন ও চেহারা নিয়ে নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সমীক্ষা চলাকালীন প্রতি তিনজনের একজন মেয়ে স্বীকার করেছে যে ইনস্টাগ্রামের কারণে তার শারীরিক গঠন নিয়ে চিন্তা করা আরও কঠিন হয়ে পড়েছে। কিশোরীদের একটি বড় অংশও স্বীকার করেছে যে তাঁদের কাছে এই অ্যাপের কারণে উদ্বেগ এবং বিষণ্ণতারা অভিযোগ আসছে। সমীক্ষা চলাকালীন ১৩ শতাংশ ব্রিটিশ মহিলা এবং ৬ শতাংশ আমেরিকান মহিলাও বলেছেন যে তাদের আত্মহত্যার চিন্তাভাবনা রয়েছে এবং এরজন্য তাঁরা ইনস্টাগ্রামকে দায়ী করেছেন।

অনেক ব্যবহারকারী বলেছেন যে, এই অ্যাপ্লিকেশনটি ব্যবহার করার পরে তারা অনুভব করতে শুরু করেছেন যে তারা কম আকর্ষণীয়। অনেক কিশোরী বলেছে যে, ইনস্টাগ্রামের কারণে তাদের শারীরিক চেহারা নিয়ে উদ্বেগ তাদের খাদ্যাভাসে নেতিবাচক পরিবর্তন এনেছে। যদিও, ফেসবুক এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

ফেসবুক তার প্রতিরক্ষায় যুক্তি দিয়েছে যে, ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল তার প্রতিবেদনে শুধুমাত্র এমন তথ্য বিবেচনা করেছে যা ফেসবুকের প্রতি নেতিবাচক ছিল। ইনস্টাগ্রাম কিডস চালু করার পিছনে ফেসবুকের যুক্তি হল যে, আজকাল ছোট বাচ্চারাও মোবাইল ফোন ব্যবহার করছে এবং এমন অ্যাপ্লিকেশন ডাউনলোড করছে যা অপ্রাপ্তবয়স্ক শিশুদের জন্য নয়। এমন পরিস্থিতিতে ওই শিশুদের মানসিক অবস্থা অনুযায়ী একটি অ্যাপ বানাতে চায় ফেসবুক।

এখন কথা হচ্ছে যে, তাহলে কী ইনস্টাগ্রাম রিল বন্ধের মুখে? বলে দিই, এর আগে ভারত আমেরিকা দুই দেশই চীনা অ্যাপ টিকটক বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। যদিও, সেটি কারও উপরে পড়া প্রভাবের কারণে না। ভারত এবং আমেরিকা দুজনাই যুক্তি দিয়েছিল যে, এই অ্যাপের মাধ্যমে চীন ব্যবহারকারীদের তথ্য চুরি করছে, যা ভবিষ্যতের জন্য বিপজ্জনক। এখন দেখার বিষয় এটাই যে, ইনস্টাগ্রামের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ যদি সঠিক হয়, তাহলে ইনস্টাগ্রাম রিল’ও চীনা অ্যাপ টিকটকের মতো বন্ধ হয়ে যায় কী না।

[ad_2]