Press "Enter" to skip to content

চীনের টিভি চ্যানেলে দেখানো হলো নবী মহম্মদের ছবি! বয়কটের ডাক দিল মুসলিম সমাজ


ফ্রান্সে পেগম্বর মহম্মদের কার্টুন ছবি নিয়ে বিতর্কের পর এবার ও এই বিতর্কে ঢুকে পড়েছে। আসলে দ্বারা পরিচালিত টিভি চ্যানেলের এক সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হচ্ছে। সেন্ট্রাল টেলিভিশন () নামের এক চ্যানেলের এক ভিডিও ব্যাপক ভাইরাল হয়ে পড়েছে।

উইঘুর মানবাধিকার কর্মী আর্সেলান হেদায়েত ভিডিও টুইটারে পোস্ট করে সকলকে চায়না বয়কটের জন্য উৎসাহিত করার চেষ্টা করেছেন। ভিডিওতে তাং রাজবংশের সময়কালে আরবের রাজদুতের চীন যাওয়ার ঘটনা দেখানো হয়েছে। ভিডিওতে আরবের রাজদূত চীনের সম্রাটকে হজরত মহম্মদের ছবি উপহার হিসেবে দিচ্ছেন।

চীনের টিভি চ্যানেলে মহম্মদের ছবি দেখানো নিয়ে অনেকে চায়না বয়কটের দাবি তুলেছে। তবে মহম্মদের ছবি দেখানো কি ইসলামে নিষেধ এই নিয়েও বিতর্ক শুরু হয়েছে। এ প্রসঙ্গে এডিনবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক মোনা সিদ্দিকী বলেছেন, কোরানে এরকম সম্পর্কে কিছু লেখা নেই। এই ধরণের ধারণা হাদিশ থেকে উৎপন্ন হয়েছে। তবে লক্ষ লক্ষ মুসলিমদের বন্দি করে রাখার পর চীনের এই কান্ড এখন নতুন বিতর্ক সৃষ্টি করেছে। চীন ফ্রান্সের থেকে বহু ধাপ এগিয়ে ইসলামের অবমাননা করেছে বলে মত প্রকাশ করেছেন অনেকে।

https://platform.twitter.com/widgets.js

আর্সলান হেদায়েতের অনুযায়ী, হজরত মহম্মদকে ভিডিওতে খুবই অসম্মানজনক হিসেবে দেখানো হয়েছে। একই সাথে উনি বলেন মহম্মদ ইসলামের একজন নবী কিন্তু ভিডিওতে উনাকে ঈশ্বর হিসেবে বলা হয়েছে। ভিডিওতে মহম্মদকে মুসলিমদের দেবতা বলা হয়েছে।

https://platform.twitter.com/widgets.js

চীনের টিভি চ্যানেলের ভিডিওতে আরবের রাজদূত বলেছেন যে মহাম্মদ আমাদের দেশের ভগবান। প্রসঙ্গটত, ফ্রান্সে মহম্মদের কার্টুন দেখানোর বিতর্কের পর বাংলাদেশ, পাকিস্তান, তুর্কি সহ বেশকিছু মুসলিম দেশে ফ্রান্সের পণ্য বয়কটের ডাক উঠেছে। এখন দেখতে বিষয় যে চীনের বিরুদ্ধে মুসলিম দেশগুলি একইভাবে আওয়াজ তোলে কিনা।