Press "Enter" to skip to content

চীনের বিরুদ্ধে কোমর বাঁধল ভারত-আমেরিকা-জাপান-অস্ট্রেলিয়া! আগামী সপ্তাহতে হবে গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক

নয়া দিল্লীঃ চীনের বেড়ে চলা আক্রমণাত্বক মনোভাবের কারণে (), জাপান (), () আর আমেরিকার () বিদেশ মন্ত্রী এর বৈঠক করতে চলেছে। এটি একটি বহুপ্রতীক্ষিত বইধক। এর লক্ষ্যে কোনও দেশ না থাকলেও এর প্রধান উদ্দেশ্য থাকবে চীনের উপর কড়া নজর রাখা। এর সাথে সাথে ইন্দো-প্যাসেফিক এবং ভারত মহাসাগরের সুরক্ষা নিয়েও এই বৈঠকে আলোচনা হবে। আরেকদিকে, বেজিং এর চার সদস্যের বিরুদ্ধে সরব হয়েছে।

কি এই QUAD ?

QUAD গণতান্ত্রিক দেশ গুলোর মধ্যে একটি অনানুষ্ঠানিক সম্পর্ক যা সামরিক সরবরাহ সরবরাহ, অনুশীলন এবং তথ্যের মাধ্যমে সামরিক সহযোগিতা বাড়িয়ে তোলে। এর মাধ্যমে, ইন্দো-প্যাসিফিক সামুদ্রিক যোগাযোগ লেনটিকে কৃত্রিম নির্মাণ এবং প্রতিবন্ধকতা থেকে মুক্ত রাখা হয়। এই বৈঠকে আমেরিকার বিদেশ মন্ত্রী মাইক পম্পিও, ভারতীয় বিদেশ মন্ত্রী এস জয়শঙ্কর, জাপানি বিদেশ মন্ত্রী তোশিমিতসু মোতেগি আর অস্ট্রেলিয়ার বিদেশ মন্ত্রী মরিস পায়নে উপস্থিত থাকবেন।

শোনা যাচ্ছে যে, বিদেশ মন্ত্রিদের বৈঠকের পর নভেম্বর মাসে আরও একটি বৈঠক হতে পারে। চীন এই বৈঠক নিয়ে মঙ্গলবার আপত্তি জাহির করেছে। উল্লেখ্য, এই চার দেশের বিদেশ মন্ত্রী সংযুক্ত রাষ্ট্রের মহাসভার বৈঠকের সময়েও আলাদা করে ২৬ সেপ্টেম্বর সাক্ষাৎ করেছিলেন। এই বৈঠকে করোনা মহামারী ছড়িয়ে পড়ার পর চীন কেমন ব্যবহার করেছে সেটা নিয়ে গভীর পর্যবেক্ষণ হতে পারে।

বিদেশ মন্ত্রীদের এই বৈঠকে সন্ত্রাসবাদ বিরোধী অভিযান, সাইবার আর সামুদ্রিক সুরক্ষা, মানবীয় সাহাজ্য আর বিপর্যয়ের সময় শীঘ্র প্রতিক্রিয়া দেওয়ার প্রক্রিয়া নিয়েও চর্চা হতে পারে। এর সাথে সাথে টেলিকম সেক্টরে 5G আর 5G+অ্যাডভান্স প্রযুক্তি নিয়ে পারস্পরিক সমর্থন সম্পর্কেও আলোচনা হতে পারে।

চীন বিগত চার পাঁচ ধরে ভারতের সাথে লাগাতার সীমান্ত নিয়ে বিবাদ সৃষ্টি করেছে। আরেকদিকে, আমেরিকার সাথে করোনা মহামারী নিয়ে চীনের ব্যাপক উত্তেজনা চলছে। চীন একতরফা ভাবে অস্ট্রেলিয়ার বিদুদ্ধে পদক্ষেপ নিয়েছে, যার ফলে অস্ট্রেলিয়াও চটে আছে। আরেকদিকে, জাপানের সাথেও চীনের সম্পর্ক খুব একটা ভালো না। জাপান আগে থেকেই চীনকে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী মানে।