Press "Enter" to skip to content

চীনের রক্তচাপ বাড়িয়ে ৩ হাজার সৈনিক আর ৯০ টি লড়াকু বিমান নিয়ে আন্দামানে পৌছাল আমেরিকা

[ad_1]

নয়া দিল্লীঃ চীনের (China) সাথে ভারতের (India) চলা উত্তেজনার মধ্যে আমেরিকা (America) সাউথ চাইনা সমুদ্রে থেকে শুরু করে ভারত মহাসাগর পর্যন্ত নৌসেনার পেট্রোলিং বাড়িয়ে দিয়েছে। চীনের পাশে সাউথ চাইনা সমুদ্রে যুদ্ধঅভ্যাস শেষ করার পর আমেরিকার নেভির এয়ারক্র্যাফট ক্যারিয়ায় USS Nimitz এবার আন্দামান নিকবোর দ্বীপ পুঞ্জে পৌঁছেছে। ওই এলাকায় ভারতীয় নৌসেনা আগে থেকেই যুদ্ধ অভ্যাস করছে।

ভারত মহাসাগরে চীনের ক্রম বর্ধমান গতিবিধির উপর লাগাম লাগাতে আমেরিকা নিজেদের তিনটি এয়ারক্র্যাফট ক্যারিয়ার ওই এলাকায় মোতায়েন করে দিয়েছে। বর্তমানে আমেরিকার একটি এয়ারক্র্যাফট ক্যারিয়ার USS Ronald Reagan সাউথ চাইনা সমুদ্রে আছে। আর USS Theodore Roosevelt কে ফিলিপিন সাগরের আশেপাশে মোতায়েন করা হয়েছে। আরেকদিকে, আমেরিকার গতিবিধিতে চকিত চীন বারবার যুদ্ধের হুমকি দিচ্ছে।

আমেরিকার সুপার ক্যারিয়ার USS Nimitzকে খুবই শক্তিশালী হিসেবে মানা হয়। পরিমানু শক্তিধর এই এয়ারক্র্যাফট ক্যারিয়ার আমেরিকার নৌসেনাতে ১৯৭৫ এর ৩ মে কমিশন করা হয়েছে। এই ক্যারিয়ার স্ট্রাইক গ্রুপ ১১ এর অংশ, যারা একা নিজের দমে অনেক দেশকে বরবাদ করার ক্ষমতা রাখে। ৩৩২ মিটার দীর্ঘ এই এয়ারক্র্যাফটে ৯০ টি লড়াকু বিমান আর হেলিকপ্টার ছাড়াও ৩ হাজার সেনা থাকতে পারে।

এয়ারক্র্যাফট ক্যারিয়ার USS Nimitz ১৯৭১ সালে ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধের সময় বঙ্গপাসাগরের পাশে পৌঁছে গেছিল। তাঁদের তখন উদ্দেশ্য ছিল বাংলাদেশে ভারতীয় সেনার হাতে বিপর্যস্ত হওয়া পাকিস্তানি সেনার সাহায্য করা। কিন্তু সেই সময় ভারতের পাশে এসে দাঁড়ায় রাশিয়া। এরফলে আমেরিকার এই এয়ারক্র্যাফট ক্যারিয়ার পিছু হটতে বাধ্য হয়।

ভারতের সাথে আমেরিকা, জাপান আর অস্ট্রেলিয়ার ভারত মহাসাগরে চীনকে চারিদিক থেকে ঘিরে ফেলার জন্য সম্পূর্ণ ভাবে প্রস্তুত। এবার ড্রাগন যদি কোন দুঃসাহস দেখায়, তাহলে তাঁদের পরিণাম ভুগতে হবে। চীনের ব্যবসার বড় অংশ ভারত মহাসাগর দিয়ে আফ্রিকার দেশগুলোতে যায়। আর চীনও তাঁদের প্রয়োজনীয় সামগ্রী এই রাস্তা দিয়েই নিজের দেশে আনে। যদি ভারতীয় নৌসেনা এই রুটকে ব্লক করে দেয়, তাহলে চীনের দুর্ভোগ বেড়ে যাবে। এখন চীন-পাকিস্তানের ইকোনমিক করিডোর সম্পূর্ণ হয়নি আর সেই কারণে চীন ওই রাস্তা দিয়েও আমদানি রপ্তানি করতে পারবে না।

চীনের সাথে চলা উত্তেজনার মধ্যে ভারতও আন্দামান নিকবোর দ্বীপপুঞ্জের আশেপাশে যুদ্ধ অভ্যাস করছে। এই যুদ্ধ অভ্যাসে বিধ্বংসী যুদ্ধ জাহাজ, পেট্রোলিং এয়ারক্র্যাফট আর ডুবোজাহাজ আছে। এছাড়াও ডুবোজাহাজকে খুঁজে বের করা এয়ারক্র্যাফট Poseidon-8I আছে। Poseidon-8I এ ঘাতক হারপুন ব্লক মিসাইল যুক্ত আছে, MK-54 লাইট ওয়েট টরপিডোও এই যুদ্ধ অভ্যাসের অংশ।

[ad_2]