Press "Enter" to skip to content

চেকমেট: কূটনীতির খেলায় চীনকে রগড়ে লাল করে দিল ভারত সরকার


চীনকে ের খেলায় চেকমেট দিয়ে আরো একবার কূটনৈতিক সাফল্য আনল । আসলে যাতে নিজের প্রতিবেশী বন্ধু দেশগুলির সাথে সম্পর্ক খারাপ করে বসে তার জন্য চাল খেলেছিল ড্রাগন। তবে এখন ের পাল্টা খেলায় ধরাশায়ী পাক-চীন। চীনের উস্কানিতেই ভারতের সঙ্গে সীমা বিবাদে লিপ্ত হয়ে পড়েছিল। ভারতের বেশ কিছু অংশকে নিজেদের বলে দাবী করে এক নতুন মানচিত্রও পেশ করেছিল । শুধু এই নয়, রামকে ি বলা, অযোধ্যাকে ের বলা ইত্যাদি নানা কুকীর্তিতে লেগে পড়েছিল

তবে এখন দুদিক থেকে চীন ও পাকিস্তান দুইকে ঘিরে ফেলেছে ভারত। নেপালকে কাজে লাগিয়ে ভারতের বিরুদ্ধে যে ষড়যন্ত্র করছিল চীন ও পাকিস্তান। সেই খেলাকে সম্পূর্ণ ঘুরিয়ে দিয়েছেন ভারত। নেপাল ৩ টি বড়ো বড়ো একশন নিয়ে তা স্পষ্ট বুঝিয়ে দিয়েছে।

প্রথমত চীন চুপিসারে নেপালের ভেতরে জমি দখলের যে কাজ করছিল তার বিরুদ্ধে এখন নেপালের লোকজন পথে নামতে শুরু করেছে। নেপালের হুমলা এলাকায় চীন ৯ টি বিল্ডিং বানিয়েছে। আর এবার এটা নিয়ে নেপালে তুমুল বিক্ষোভ শুরু হয়েছে। বিক্ষোভকারীরা ব্যানারের সাথে ‘গো ব্যাক চাইনা” আর ‘চীন পিছু হটো” এর স্লোগানে মুখরিত হয়েছে। বিক্ষোভকারীদের পোস্টারে নেপালে হওয়া চীনের নির্মাণের ছবি দেওয়া হয়েছে।

দ্বিতীয়ত পাকিস্তানকে শিক্ষা দিতে ও নিজের ভুল শুধরে নিতে ভারতের সুরে সুর মিলিয়েছেন নেপালের প্রধানমন্ত্রী। মহলে প্রথম থেকেই ভারত আতঙ্কবাদের বিরোধিতা করেছে। এবার সেই দলে নাম লিখিয়ে ভারতের সমর্থনে নেমে পড়েছে নেপাল। আতঙ্কবাদের বিরোধিতায় তীব্র ভাষায় মুখর হয়েছেন নেপালের প্রধানমন্ত্রী কে পি শর্মা অলি।

শুক্রবার UN এর বৈঠকে অন্তরাষ্ট্রীয় আতঙ্কবাদের তীব্র বিরোধিতা করেন নেপালের প্রধানমন্ত্রী। এ বিষয়ে তিনি বলেন, নেপাল কোনোভাবেই আতঙ্কবাদের সমর্থন করে না। শীঘ্রই আতঙ্কবাদের বিলুপ্তির দাবি জানান। এই ভার্চুয়াল সভায় নেপালের প্রধানমন্ত্রী ভারতের প্রসঙ্গে কোন কথা তোলেননি। উল্টে পরোক্ষভাবে ভারতকে সমর্থন জানাতে আতঙ্কবাদের বিরুদ্ধে মুখ খোলেন। যা সরাসরি পাকিস্তানের বুকে ও চীনের মনে আঘাত করে।

তৃতীয়ত, নেপাল ভারতের বিতর্কিত মানচিত্র যুক্ত যে সব বই প্রকাশ হয়েছিল তার উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। নেপাল সেইসব নতুন বই বিতরণ বন্ধ করেছে যার মধ্যে রয়েছে দেশের তিনটি কৌশলগত গুরুত্বপূর্ণ ভারতীয় অঞ্চলকে তার অঞ্চল হিসাবে দেখানো দেশের একটি সংশোধিত রাজনৈতিক মানচিত্রে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছিল। সব মিলিয়ে নেপালকে নিয়ে যে কূটনৈতিক লড়াই শুরু হয়েছিল তাতে শেষমেষ ভারতে জয় স্পষ্ট চোখে পড়তে শুরু হয়েছে।