Press "Enter" to skip to content

ছত্রিশগড়: মা দুর্গার মূর্তি বিসর্জনের সময় কালিম খানের নেতৃত্বে ভক্তদের উপর পুলিশের লাঠিচার্জ

হিন্দুরা কি সত্যিই রাজনৈতিকভাবে অবহেলিত হয়ে পড়েছে তা নিয়ে আবারও প্রশ্ন উঠতে শুরু হয়েছে।
বিহারের মুঙ্গেরে দুর্গা পূজার বিসর্জন করতে যাওয়া ভক্তদের উপর পুলিশের লাঠিচার্জে ভিডিও ভাইরাল হওয়ার পর আবার একই ধরনের ঘটনার আসছে। বিহারের মুঙ্গেরে পালকিতে মা দুর্গাকে চাপিয়ে বিসর্জনের জন্য নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল। সেই সময় পুলিশ পালকি আটকে লাঠিচার্জ করে, গুলি চলার কারণে এক যুবকের মৃত্যু হয়। অভিযোগ উঠেছে পুলিশের গুলিতেই যুবকের মৃত্যু হয়েছে। মুঙ্গেরের পর এবার ে মা দুর্গার বিসর্জনের সময় ভক্তদের উপর লাঠিচার্জ করার খবর সামনে আসছে।

ছত্তিশগড়ের বিলাসপুরে মা দুর্গার বিসর্জনের সময় পুলিশ ভক্তদের আটকে দেয়। এরপর ভক্তরা বিক্ষোভ প্রদর্শন করলে পুলিশ লাঠিচার্জ করে। সুত্রের খবর অনুযায়ী, পুলিশ দৌড়িয়ে দৌড়িয়ে ভক্তদের মারধর করে। ঘটনা মঙ্গলবার রাত ১০ টের সময় হয়েছে যখন লোকজন গান বাজাতে বাজাতে মা দুর্গার বিসর্জনের জন্য যাচ্ছিলেন।

তেলিপাড়া দূর্গাউৎসব সমিতির সদস্যরা থানার পাশ দিয়ে গান বাজিয়ে পার হচ্ছিলেন। সেই সময় পুলিশকর্মীরা আওয়াজের বাহান দিয়ে গাড়ি আটকে দেয়। মা দুর্গার গাড়ি ও ডিজে গাড়ি আটকে দেওয়ার সাথে সাথে সদস্যদের ব্যাক্তিগত বাহনকেও আটকে দেয়। এরপর ভক্তদের সাথে পুলিশের তর্ক বিতর্ক শুরু হয়ে যায়। যারপর পুলিশ বর্বরতার সাথে লাঠিচার্জ করে।

ঘটনার দেখে স্থানীয় হিন্দুরা আক্রোশ প্রকাশ করে এবং পুলিশের বিরুদ্ধে শ্লোগানবাজি শুরু করে। যারপর চাপে পড়ে পুলিশ বিসর্জন করতে দিতে বাধ্য হয়। টিআই কালিম খানের নেতৃত্বে ভক্তদের উপর লাঠিচার্জ করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। প্রসঙ্গত, বিলাসপুরে প্রতি বছর দুর্গাউৎসব পালন করা হয় এবং ধুম ধাম অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে মায়ের বিসর্জন হয়। তবে এবছর বিলাসপুরের ঘটনা স্থানীয় হিন্দুদের রীতিমতো হতাশ করেছে।