Press "Enter" to skip to content

জয় হলো হিন্দুত্বের!! শেষমেষ ভারতীয় হিন্দুদের কাছে ক্ষমা চাইতে বাধ্য হলো পাকিস্তানপ্রেমীরা।

হিন্দু হোক বা অন্যকোন ধর্মের, ভারতবাসী হিসাবে ভারতের প্রতি আমাদের সবার সমান ভালোবাসা এবং দায়িত্ব আছে এবং ভারতমাতা কে আমরা সবাই মনপ্রাণ দিয়ে ভালোবাসি।কিন্তু যখন দেখি যে ভারতের শত্রু ভারতের মধ্যেই রয়েছে তখন খুবই খারাপ লাগে। যদি কোনো দেশের জনগন একতা হয়ে থাকে তাহলে অন্য কোনো শত্রু দেশ সেই দেশকে আক্রমণ করতে ভয় পাবে। কিন্তু সেই দেশের শত্রু যদি দেশের মধ্যেই থাকে তাহলে অন্য দেশের আক্রমণ করতে অনেক সুবিধা হয়। তারা বেশি পেয়ে বসে যেমন হয়েছে ভারতের সাথে।আপনাদের জেনে রাখা দরকার, কিছু দিন আগে একটি টিভি সিরিজের মূল পর্বে দেখানো হয় মার্কিনমুলুকের কোনো একটি বিশেষ জায়গায় পাকিস্তান কে বদনাম করার জন্য ছক কষেছে সন্ত্রাসবাদীরা এবং সেই সন্ত্রাসবাদীদের গলা থেকে পাওয়া যায় রুদ্রাক্ষমালা তাই তাদের কে ভারতীয় হিন্দু হিসাবে গন্য করা হয়েছে। এই পর্বে মুখ্য ভূমিকায় অভিনয় করেছেন প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। মানে তিনি সেখানে বিশ্ববাসীকে নিজের দেশের হিন্দুদের খারাপ চোখে দেখিয়েছেন এবং রীতিমত বদনাম করেছেন অপর দিকে পাকিস্তানের সুনাম করেছেন।

এই পর্ব সম্প্রচারের পরেই নানারকম জায়গা থেকে এবং বিভিন্ন সোস্যাল সাইডে প্রিয়াঙ্কা চোপড়াকে নেতিজেনদের নিশানার সম্মুখিন হতে হয়। পড়ে অবশ্য এই মার্কিন টিভি সিরিজ’কোয়ান্টিকো’তে ‘হিন্দু সন্ত্রাসবাদ’দেখানোয় ক্ষমা চেয়ে নেয় মার্কিন টেলিভিশন স্টুডিও এবিসি। তাদের বক্তব্য কাওকে আঘাত করার কেনো উদ্দেশ্য ছিল না আমাদের!এই সিরিজে দেখানো হয়েছে যে ৩৫ বছর বয়সি প্রিয়াঙ্কা চোপড়া অভিনয় করেছেন অ্যালেক্স প্যারিসের চরিত্র। সেই সময় ইন্দো-পাক সম্মেলনের সময় একটা পরমানু হামলার ছক তিনি বানচাল করে দেন এবং সেখানে তিনি একজন সন্ত্রাসবাদীর কাছে রুদ্রাক্ষর মালা দেখেন এবং সেটিকে তিনি উদ্ধার করেন এই সিরিজে ওই সন্ত্রাসবাদীকে একজন ভারতীয় হিন্দু নাগরিক হিসাবে দেখানো হয়।

সংবাদ সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদন অনুযায়ী, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে হিন্দুত্ব নিয়ে বিশেষজ্ঞ ডেভিড ফ্রলি মন্তব্য করেন প্রিয়াঙ্কা চোপড়া নিজের দেশের সাথে মানে ভারতের সাথে যে বিশ্বাসঘাতকা করেছে এককথায় বলা যায় ভারতীয় হিন্দুদের সাথে যেটা করল সেটা কি কোনো পাকিস্তানি অভিনেত্রী কখনো করবেন পাকিস্তান বা ইসলামের সাথে। তিনি আর বলেন যে প্রিয়াঙ্কা চোপড়ার হাত ধরেই মার্কিনযুক্তরাষ্ট্রে হিন্দু সন্ত্রাসের ভুয়ো গল্প ঢুকে পড়ল।চারিদিক থেকে অসংখ্য পরিমানে সমালোচনা হচ্ছিল প্রিয়াঙ্কা চোপড়াকে নিয়ে তাই শেষ পর্যন্ত চাপের মুখে পড়ে ক্ষমা চাইতে বাধ্য হল এবিসি।

[sg_popup id=”1″ event=”onload”][/sg_popup]তারা এই কথা মেনে নিয়েছে যে এই চিত্রনাট্যটি অনেকের অবেগকে আঘাত করেছে। তারা এটাও বলেন যে এই চিত্রনাট্য টি প্রিয়াঙ্কা চোপড়া লিখেন নি এবং পরিচালনাও করেন নি। এতে তার কোনো ভূমিকা নেই। অযথা তাকে দোষারোপ করা হচ্ছে।তারা আরও জানালো যে এই ধরনের বিনোদন মূলক চিত্রনাট্য বিভিন্ন সম্প্রদায়কে দেখানো হয় তবে এক্ষেত্রে জটিল রাজনৈতিক বিষয়ে ঢুকে পড়েছি। কোনো সম্প্রদায়ের ভাবাবেগ কে আঘাত করার উদ্দেশ্য আমাদের ছিল না।

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.