Press "Enter" to skip to content

টাকা দিয়ে ঝাড়খণ্ডের সরকার ভাঙার ষড়যন্ত্র, মামলা দায়ের কেজরীবালের বিরুদ্ধে

ঝাড়খণ্ডের (Jharkhand) রাজনীতিতে আরও একবার চাঞ্চল্যকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। শাসক দল ঝাড়খণ্ড মুক্তি মোর্চার (JMM) বিধায়ক পেশ করে দাবি করেছেন যে, রাজ্যের হেমন্ত সরকার (Hemant Soren) ফেলার প্রয়াস অনুযায়ী তাঁকে প্রলোভন দেখানো হয়েছিল। ঘাটশিলার JMM বিধায়ক রাাস সোরেন নিজের দলের পুরনো নেতার বিরুদ্ধে এই চাঞ্চল্যকর অভিযোগ তুলেছেন। বিধায়ক রামদাস সোরেন এই বিষয়ে থানায় অভিযোগও দায়ের করেছেন। ওনার এই অভিযোগের পর ঝাড়খণ্ডের রাজনীতিতে আবারও অস্থিরতা তৈরি হয়েছে।

বিধায়ক রামদাস সোরেন এই গুরুতর অভিযোগ JMM-র প্রাক্তন নেতা তথা দীর্ঘদিন ধরে দলের কোষাধ্যক্ষ থাকা রবি কেজরীবালের বিরুদ্ধে তুলেছেন। সোরেন বলেন, কেজরীবাল আমাকে নতুন সরকারে মন্ত্রীপদ আর টাকা দেওয়ার প্রলোভন দিয়েছিলেন। বিধায়ক সোরেন বলেন, কেজরীবাল আর তাঁর এক বন্ধু তাঁর সরকারি আবাসে এসে এই প্রলোভন দেন। বিধায়ক দাবি করেন যে, তাঁরা সঙ্গে মিলে সরকার বানানোর প্রস্তাব দিয়েছিল। বিধায়ক অভিযোগ করে বলেন, কেজরীবাল দু-তিনবার তাঁকে েও ফোন করে প্রস্তাব দিয়েছিল।

বিধায়ক রামদাস সোরেন বলেন, রবি কেজরীবাল আমাকে টাকার সঙ্গে মন্ত্রীপদ দেওয়ারও প্রস্তাব দিয়েছিল। বিধায়ক বলেন, কেজরীবাল বলেছিলে সোরেন সরকার ভাঙার জন্য কত টাকা লাগবে বলুন শুধু। বিধায়ক বলেন, আমি থানায় অভিযোগ জানানোর পাশাপাশি মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সোরেনকেও এই তথ্য দিয়েছিলাম।

রামদাস সোরেন অভিযুক্ত নেতা রবি কেজরীবাল আর তাঁর বন্ধুর বিরুদ্ধে ১২ অক্টোবর ধুব্রা থানায় অভিযোগ দায়ের করেছিলেন। ওই দুই নেতার বিরুদ্ধে IPC-র 124 এ, 171 ই, 120 ডি, 34 দুর্নীতি প্রতিরোধ আইন ১৯৮৮-র ধারা ৮ আর ৯ অনুযায়ী মামলা দায়ের হয়েছে।