Press "Enter" to skip to content

‘ট্রাম্পের থেকেও বড় রাষ্ট্রবাদী নেতা মোদী” বিদেশের প্রথম সারির মিডিয়ায় জয়গান প্রধানমন্ত্রীর

বিদেশী মিডিয়ায় আমেরিকার রাষ্ট্রপতি ের () () সফরকে বেশ প্রাধান্য দিয়েছে। বেশীরভাগ বিদেশী মিডিয়ার অনলাইন সংস্করণে এই সফরকে লাইভ কভারেজ দেওয়া হয়েছে। যাত্রার প্রথম দিনে ট্রাম্পকে স্বাগত জানান, আর নমস্তে ট্রাম্প অনুষ্ঠানে ভাষণ এবং দ্বিতীয় দিনে ট্রাম্প আর প্রধানমন্ত্রী মোদীর () বৈঠক, প্রতিরক্ষা চুক্তি এবং ট্রাম্পের প্রেস বার্তাকে প্রাধান্য দিয়ে সমস্ত কভার করা হয়েছে।

নিউইউর্ক টাইমসঃ বাণিজ্যিক চুক্তি না করায় ট্রাম্পের উপর ক্ষোভ দেখিয়ে নিউইউর্ক টাইমস লেখে, ট্রাম্প ভারতের সাথে বাণিজ্যিক চুক্তিতে প্রগতি হওয়া কথা বলেছিলেন, কিন্তু বাণিজ্যিক চুক্তি নিয়ে কোন ঘোষণা হয়নি। উপরন্তু সফরের শেষ দিনে তিনি ভারতের উচ্চ আমদানি শুল্ক নিয়ে অভিযোগ দায়ের করেন।

সিএনএনঃ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে ট্রাম্পের থেকেও বড় রাষ্ট্রবাদী নেতা আখ্যা দিয়ে সিএনএন লেখে, মোদী ট্রাম্পকে দেওয়া জনসমাগমের প্রতিশ্রুতি পালন করেছেন। ট্রাম্প দ্বারা সচিন কে সুচ্চিন আর বিরাট কোহলি কে বিরাট কোলি বলা নিয়েও লেখালেখি করে সিএনএন।

ওয়াশিংটন পোস্টঃ এই সংবাদ মাধ্যম সবার আগে ট্রাম্পের ভারত সফরের লাইভ আপডেট দেখায় আর বিস্তৃত কভারেজ করে। মোদী-ট্রাম্প এর মঙ্গলবার হওয়া বৈঠককে দিল্লী হিংসার সাথে জুড়ে ওয়াশিংটন পোস্ট লেখে, যখন ট্রাম্প শিল্পপতি, ব্যবসায়ীদের সাথে সাক্ষাৎ করছিল, তখন দেশের রাজধানী দিল্লীর কিছু জায়গায় হিন্দু-মুসলিম হিংসায় আগুন জ্বলেছিল। দুই দেশের মধ্যে বাণিজ্যিক চুক্তি এখনো হয়নি বলে জানায় এরা। ট্রাম দ্বারা একা প্রেস কনফারেন্স করা নিয়ে ওয়াশিংটন পোস্ট লেখে, মোদী মিডিয়ার সাথে স্বাধীন ভাবে কথা না বলে, নিজেকে আড়াল করছিল।

পাকিস্তানি মিডিয়াঃ ট্রাম্প বারবার ইসলামিক সন্ত্রাসবাদের কথা উল্লেখ করে সন্ত্রাসবাদ খতম করার কথা বলেন। কিন্তু পাকিস্তানি মিডিয়া এই কোথায় গুরুত্ব না দিয়ে নিজেদের সাথে ভালো সম্পর্কের একটি কথা বেশ বড়সড় ভাবে লেখে। ডন লেখে, ভারতে গিয়েও ট্রাম্প পাকিস্তানের প্রশংসা করে, আর সম্পর্ক ভালো করার কথা বলে। শেষে একটু ক্ষুব্ধ হয়ে ডন লেখে, গুজরাট দাঙ্গার পরেও ট্রাম্প ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে ‘সফল রাজনেতা” আখ্যা দিয়েছেন।