Press "Enter" to skip to content

তৃণমূলে যোগ দেওয়ার ইচ্ছে প্রকাশ করতেই বিজেপিকে নিয়ে বিস্ফোরক বয়ান সোনালীর


কলকাতাঃ ি ছাড়ার কারণ নিয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য করলেন সাতগাছিয়ার প্রাক্তন বিধায়ক সোনালী গুহ (Sonali Guha)। তিনি বলেন, ‘আমার কাছে দিদির ব্যক্তিগত চরিত্র নিয়ে জানতে চেয়েছিল নেতারা। সোজা কথায় দিদির নামে কুৎসা রটাতে হত আমাকে। আমার পক্ষে এটা একদমই সম্ভব ছিল না।”

সোনালী গুহ বলেন, ‘আমি দিদির কোনও খারাপ দিক জানি না। আমি বিজেপিতে মানিয়ে নিয়ে উঠতেও পারছিলাম না। আর এই কারণেই আমি দিদিকে ট্যাগ করে টুইট করে তৃণমূলে ফেরার আবেদন করেছি।” সোনালী গুহ বলেন, ‘আমি দেওয়ার পর আমাকে বলেছিল কি চাস? আমি টিকিট-টাকা কিছুই চাইনি”

উল্লেখ্য, একুশের বিধানসভা টিকিট না পেয়ে কান্নাকাটি করেছিলেন একদা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছায়াসঙ্গী তৃণমূলের দাপুটে বিধায়ক সোনালী গুহ। এরপরই তিনি দলত্যাগ করে বিধানসভা নির্বাচনের আগে বিজেপিতে যোগ দেন। আর এবার তিনি আবারও তৃণমূলে ফেরত যেতে চেয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে কাতর আবেদন করলেন।

টুইটারে একটি পোস্ট করে সোনালী গুহ লেখেন, ‘সম্মানীয় দিদি, আমার প্রণাম নেবেন। আমি সোনালী গুহ, অত্যন্ত ভগ্ন হৃদয়ে বলছি যে, আমি আবেগপূর্ণ হয়ে চরম অভিমানে ভুল সিদ্ধান্ত নিয়ে অন্য দলে গিয়েছিলাম। ওটা আমার চরম ভুল সিদ্ধান্ত ছিল। কিন্তু আমি সেখানে মানিয়ে নিতে পারছি না। মাছ যেমন জল ছাড়া বাঁচতে পারে না, তেমনই আমি আপনাকে ছাড়া বাঁচতে পারব না। দিদি। আমি আপনার কাছে ক্ষমাপ্রার্থী। দয়া করে আমাকে ক্ষমা করে দিন।”

https://platform.twitter.com/widgets.js

সোনালী গুহ আরও লেখেন, ‘আপনি আমাকে ক্ষমা না করলে আমি বাঁচব না। আপনার আঁচলের তলে আমাকে টেনে নিয়ে বাকি জীবনটা আপনার স্নেহতলে থাকার সুযোগ করে দিন।” সোনালী গুহর এই পোস্টের পর বিজেপির নেতা জয়প্রকাশ মজুমদার বলেন, ‘এটা রাজনীতি। এখানে মান অভিমানের কোনও জায়গা নেই। যে যেখানে পারবে, সে সেখানে গিয়ে ভালো থাকুক। এটা ওনার ব্যক্তিগত সিদ্ধান্ত।” আরেকদিকে, তৃণমূলের সাংসদ সৌগত রায় বলেন, দলনেত্রী যা সিদ্ধান্ত নেবেন সেটাই হবে।