Press "Enter" to skip to content

তৃণমূল-বিজেপি সবারই নিন্দা! অদূরে দাঁড়িয়ে নিরপেক্ষ ভূমিকা পালন করে চলেছেন মুকুল রায়


কলকাতাঃ ত্রিপুরার রাজধানী আগরতলায় গিয়ে বিজেপির কর্মী-সমর্থকদের বিক্ষোভের মুখে পড়তে হয় তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে। আগরতলা নেমে ত্রিপুরেশ্বরী মন্দিরে যাওয়ার পথে জায়গায় জায়গায় অভিষেকের কনভয় আটকে দেওয়ার অভিযোগ ওঠে বিজেপির কর্মীদের বিরুদ্ধে। পাশাপাশি অভিষেকের কনভয়ে থাকা একটি গাড়িতে হামলারও অভিযোগ ওঠে বিজেপির বিরুদ্ধে।

অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের তরফ থেকে একটি টুইট করা হয়, যেখানে স্পষ্ট দেখা যায় যে একজন ব্যক্তি যার হাতে বিজেপির পতাকা রয়েছে, সে সে পতাকা লাগানো ডাণ্ডা দিয়ে একটি গাড়িতে হামলা করে। এই ঘটনার পর অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রীকে তুমুল আক্রমণ করেছেন। সাংবাদিক বৈঠকে অভিষেক বলেছেন যে, ত্রিপুরায় গণতন্ত্র নেই। আমরা ক্ষমতায় আসার দেড় বছরের মধ্যে গণতন্ত্র-উন্নয়ন ফিরিয়ে

অন্যদিকে বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দেওয়া কৃষ্ণনগর উত্তরের বিধায়ক মুকুল রায়ও এই ঘটনার তীব্র নিন্দা করেছেন। তিনি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের করা টুইটটি রিটুইট করে ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়েছেন। আর এরপরই সোশ্যাল মিডিয়ায় মুকুল রায়কে নিয়ে তুমুল হাসিঠাট্টা শুরু হয়েছে।

নেটজেনরা মুকুল রায়ের পুরনো কিছু টুইট তুলে ধরে ওনাকে ট্রোল করা শুরু করেছে। পুরনো টুইট গুলিতে মুকুল রায়কে ের উপর হামলার জন্য তৃণমূলকে দায়ী করতে দেখা যাচ্ছে। এমনকি ে জেপি নাড্ডার কনভয়ের উপর হামলায় তিনিও আহত হয়েছিলেন। সেখানেও ওনাকে তৃণমূলের বিরুদ্ধে সরব হতে দেখা গিয়েছে।

মুকুল রায়ের সেই পুরনো টুইট গুলি তুলে উনে নেটিজেনরা হাসিঠাট্টার ছলে লিখছে, মুকুল রায়ই একমাত্র নিরপেক্ষ নেতা। যিনি সবার উপরে হামলার তীব্র নিন্দা করেন।