Press "Enter" to skip to content

ত্রিপুরায় জনরোষের মুখে পড়তে পারে অভিষেক, বিজেপি নেতার মন্তব্যে তুঙ্গে জল্পনা

আগরতলাঃআগামীকাল বৃহস্পতিবার (Tripura) যাচ্ছেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় ()। আর তাঁর ত্রিপুরা সফরকে ঘিরে বড়সড় পরিকল্পনা রয়েছে বিজেপির (Bharatiya janata party)। গেরুয়া িরের সূত্রের অনুযায়ী, রাজধানী আগরতলায় অভিষেকের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ কর্মসূচির প্রস্তুতি নিয়েছে বিজেপি। যদিও বিজেপির রাজ্য সাধারণ সম্পাদক কিশোর বর্মণ জানিয়েছেন, ‘আমরা এমনও কোনও পরিকল্পনা করছি না। তবে সাধারণের জনরোষের মুখে পড়লে সেই দায় আমরা নেব না।” তিনি জানিয়েছেন, আমরা সবাইকে স্বাগত জানাতে প্রস্তুত। ওনার মন্তব্যে এটুকু স্পষ্ট যে অভিষেককে বিক্ষোভের মুখে পড়তে হবে।

উল্লেখ্য, ত্রিপুরার রাজধানীর আগতলায় গিয়ে প্রায় ৪৮ ঘণ্টা ধরে হোটেলে আটক রয়েছে প্রশান্ত কিশোরের টিম। আগরতলা পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে যে, ভিন রাজ্য থেকে ত্রিপুরায় আরটি-পিসিআর টেস্ট ছাড়া আসার কারণেই তাঁদের হোটেলে থাকার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। প্রশাসনের তরফ থেকে তাঁদের করোনার পরীক্ষা করানো হয়েছে, সেই রিপোর্ট না আসা পর্যন্ত তাঁদের হোটেলেই থাকতে হবে।

অন্যদিকে, আই প্যাকের ২৩ জন সদস্যকে হোটেলে বন্দি রাখার অভিযোগে আজ তরফ থেকে ব্রাত্য বসু, মলয় ঘটক আর ঋতব্রত বন্দ্যোপাধ্যায় ত্রিপুরায় গিয়েছেন। সেখান থেকে তাঁরা বিজেপির বিরুদ্ধে তোপ দেগেছেন, এবং খোদ মমতা ব্যানার্জীকে ত্রিপুরায় এসে পরিস্থিতি খতিয়ে দেখার আবেদন করেছেন।

শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু আগরতলা থেকে সাংবাদিক বৈঠকে বলেছেন, “এখনই এতো ভয়? আইপ্যাক তো কোনও রাজনৈতিক সংগঠন নয়। ওই ২৩ জনের অপরাধটা কি? তাদের মাথার উপর প্রশান্ত কিশোর রয়েছে তাই?” সেখান থেকে রাজ্যের প্রাক্তন শাসক দল ের উদ্দেশ্যে বার্তা দিয়ে ব্রাত্যবাবু বলেন, “পশ্চিমবঙ্গের বামেরা বিধানসভা ভোটে যে ভুল করেছে, সেই ভুল ত্রিপুরার বামপন্থীরা না করলেই ভালো। মমতা ব্যানার্জির বিরোধিতা না করে ওঁদের উচিত ওঁর পাশে দাঁড়ানো।” কার্যত ত্রিপুরায় করমর্দনের জন্য তৃণমূল যে হাত বাড়িয়ে রাখল মানিকবাবুদের দিকে তা বলাই বাহুল্য।