Press "Enter" to skip to content

ত্রিপুরায় যাবে বেকার যুবক-যুবতীরা, বাংলার শিক্ষা-কর্মসংস্থান আর শিল্পের নগ্নরূপ তুলে ধরবে তাঁরা


কলকাতাঃ ত্রিপুরাকে পাখির চোখ করে নেমেছে তৃণমূল । ২০২৩-এর বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপিকে হারিয়ে ক্ষমতা দখল করার লক্ষ্যে আজ আগরতলায় পাড়ি দিচ্ছেন তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। এর আগে ডেরেক ওব্রায়েন, কাকলী ঘোষ দস্তিদার, ব্রাত্য বসুরা ত্রিপুরায় গিয়েছিলেন। বর্তমানে তৃণমূলের মুখপাত্র দেবাংশু ভট্টাচার্যও ত্রিপুরাতেই রয়েছেন।

ত্রিপুরাীকে শিক্ষা, কর্মসংস্থান এবং সুশাসনের স্বপ্ন দেখিয়ে বিপ্লবের রাজ্যে ঘাস ফুলের চাষ করতে চাইছে তৃণমূল কংগ্রেস। আরেকদিকে, রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু যখন ত্রিপুরায় বিজেপির বিরুদ্ধে ঘুঁটি সাজাচ্ছিলেন, তখন আরেকদিকে রাজ্যের SSC চাকরিপ্রার্থীরা ওনার বাড়ির সামনে চাকরির দাবিতে বিক্ষোভ দেখানোর প্রস্তুতি নিচ্ছিল। ব্রাত্য বসু ছেড়ে বাংলাতে আসার পরই এসএসসি চাকরি প্রার্থীরা ওনার বাড়ির সামনে বিক্ষোভ দেখায়।

একদিকে তৃণমূল বলছে ত্রিপুরায় কর্মসংস্থা, শিক্ষা আর শিল্পের রাস্তা খুলবে। অন্যদিকে অভাগা বাংলা ১০ বছর ধরে শিক্ষা, কর্মসংস্থান আর শিল্প থেকে বঞ্চিত রয়েছে। তৃণমূল কংগ্রেস ক্ষমতায় আসার পর থেকেই রাজ্যে একের পর এক কারখানা বন্ধ হচ্ছে। কাজ হারিয়েছে লক্ষ লক্ষ মানুষ। অন্যদিকে, চাকরিতে নিয়োগ তো দূরের কথা, বিগত কয়েকবছর ধরে রাজ্যে টেট পরীক্ষাই হচ্ছে না। শেষ টেট পরীক্ষায় উত্তীর্ণরা এখনও পর্যন্ত চাকরি পায়নি।

আর এই কারণেই, ত্রিপুরাবাসীদের আগেভাগে সাবধান করতে বাংলা থেকে বেকার যুবক-যুবতীরা পাড়ি দিচ্ছে বিপ্লবের রাজ্যে। তাঁদের প্রধান লক্ষ্য থাকবে বাংলায় ের আমলে বেড়ে চলা বেকারত্ব ইস্যু। এছাড়াও শিল্পের অভাবের খতিয়ানও জনসমক্ষে তুলে ধরবে তাঁরা।

প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী, বাংলার বেকার যুবক-যুবতীরা ত্রিপুরায় গিয়ে সেখানকার মানুষকে এটাই বোঝাবে যে, বাংলায় বর্তমানে তাঁদের অবস্থা কেমন। রাজ্য জুড়ে চলা নৈরাজ্যের চিত্র তাঁরা তুলে ধরবে ত্রিপুরার মানুষের সামনে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক চাকরিপ্রার্থী জানিয়েছেন যে, তাঁরা ত্রিপুরায় নির্দিষ্ট কোনও রাজনৈতিক দলের সুবিধা পাইয়ে দেওয়ার কাজ করবে না। তাঁদের কাজ থাকবে মানুষকে তৃণমূলকে নিয়ে সাবধান করা।

উল্লেখ্য, একুশে বাংলার নির্বাচনের সময় একদল মানুষকে শুধুমাত্র বিরোধিতায় সরব হতে দেখা গিয়েছিল। তাঁরা নির্দিষ্ট কোনও দলের হয়ে ভোট না চেয়ে মানুষকে বিজেপিকে ভোট না দেওয়ার আবেদন জানিয়েছিল। বিজেপি ক্ষমতায় এলে বাংলার মানুষের কী ক্ষতি হতে পারে, সেটা জানিয়েছিল তাঁরা। আর এবার অন্য একটি সংগঠন ত্রিপুরায় গিয়ে তৃণমূলের বিরুদ্ধে ঠিক একই ভাবে প্রচার করার পরিকল্পনা নিয়েছে।