Press "Enter" to skip to content

দলীয় কর্মীকে ধর্ষণের অভিযোগ! ‘ইমেজ’ বাঁচাতে দুই নেতাকে বরখাস্ত কেরালা সিপিএম

বামপন্থীদের স্বঘোষিত স্বর্গরাজ্য কেরালায় অমানবিক নির্যাতনের শিকার ! তবে এটি প্রথম নয় এর আগেও বহু শিরোনাম সংবাদমাধ্যমের পাতায় ভেসে উঠেছে যেখানে দেখা গিয়েছে কেরালায় কর্মীদের দ্বারা সাধারণ নারীরা কখনও বা দলীয় কর্মীরা নির্যাতিত-নিপীড়িত ও ধর্ষিত। সম্প্রতি কেরালায় একটি ের মামলায় দেখা গিয়েছে জড়িত দুই অভিযুক্ত কর্মী শাসক দল সিপিএমের‌ই কর্মী।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, সিপিএমের মুলিয়েরি পূর্ব শাখার সেক্রেটারি পিপি ভুজরাজ এবং ডিওয়াইএফআই পাথিইয়ারাক্কার সেক্রেটারি টি পি লিজেশের বিরুদ্ধে শনিবার ধর্ষণ এবং ব্ল্যাকমেলিংয়ের অভিযোগ তুলেছেন এক মহিলা কর্মী। আর সেই অভিযোগেই আপাতত এই দুজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ইতিমধ্যেই নিজেদের ইমেজ বাঁচাতে তড়িঘড়ি বরখাস্ত করা হয়েছে ওই দুই রাজনৈতিক নেতাকে।

 

অভিযোগকারিণীর দাবি করেছেন, তিন মাস আগে একদিন ভুজরাজ হঠাৎই তার বাড়ি আসে এবং তাকে ভয় দেখিয়ে তার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হয়। এরপর শেষ কয়েক মাস ধরে বারবার ব্ল্যাকমেল করে চলতে থাকে ধর্ষণ। প্রথমে এই ঘটনায় জড়িত না থাকলেও পরে ঘটনায় যোগ দেন লিজেশও। আপাতত তাদের বিরুদ্ধে আইপিসি সেকশন ৩৭৬, ৩৭৬(২), ৩৫৪(এ) ও ১০৯ ধারায় মামলা দায়ের করেছে পুলিশ।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, ২০১৬ সালে রাইসউদ্দিন মোল্লা নামক এক সিপিএম নেতার বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ তুলেছিল গৃহহীন এক মহিলা। এর জেরে তাকে ‌ও করা হয়েছিল। ওই বছরই ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল হলদিয়ার জোনাল কমিটির সেক্রেটারি শ্যামল মাইতিকেও। এবার ফের একবার ধর্ষণের ঘটনায় নাম জড়িয়েছে সিপিএম নেতার।

ভাদাকারা ডিআইএসপি মুসা ভালিক্কদন এ বিষয়ে সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছেন, পুলিশ অভিযুক্তকে গ্রেপ্তারের জন্য তদন্তের গতি বাড়িয়ে তুলেছে। তিনি একথাও বলেছেন, ‘তদন্তকারী দলটি ভুক্তভোগীর কাছ থেকে ঘটনার বিস্তারিত বিবরণ নিতে শুরু করেছে।’