Press "Enter" to skip to content

দলীয় কর্মীর খুনে অভিযুক্তকে মাথা ন্যাড়া করিয়ে গঙ্গাজল ছিটিয়ে শুদ্ধ করে দলে নিল তৃণমূল


রাখঢাক করে রাখা হয়েছিল যোগদান মেলা। প্রায়শ্চিত্ত করে ি থেকে তৃণমূলে দেওয়ার জন্য আয়োজন করা হয়েছিল ‘গণ মুণ্” অনুষ্ঠান। কমবেশি প্রায় ৫০০ বিজেপি কর্মী মঙ্গলবার বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দেন।

আর এই যোগদান মেলা নিয়ে ঘটেছে বিপত্তি। কারণ ওই ৫০০ জনের ভিড়ে এমন একজন বিজেপি কর্মীকে দলে নেওয়া হয়েছে, সে তৃণমূল কর্মীর খুনে অভিযুক্ত। হুগলির আরামবাগের তৃণমূল সাংসদ অপরূপা পোদ্দারের (aparupa poddar) হাত ধরে এদিন তাঁরা তৃণমূলে যোগ দেন।

বিজেপি ছেড়ে বিভাস মালিক নামের এক কর্মীও মঙ্গলবার তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন। বিভাসের বিরুদ্ধে তৃণমূল কর্মী মনোরঞ্জন পাত্রর খুনের অভিযোগ রয়েছে। দলীয় কর্মীর খুনে অভিযুক্ত ব্যক্তিকে দলে টেনে প্রশ্নের মুখে পড়তে হয়েছে সাংসদ এবং জেলা সভাপতিকে।

এই বিষয়ে তৃণমূলের জেলা সভাপতি দিলীপ যাদব বলেন, ‘দলা কাকে নেওয়া হবে, কাকে দল থেকে বের করে দেওয়া হবে সেটার সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা জেলা নেতৃত্বের নেই। কেউ যদি দলে যুক্ত হতে চান, তাহলে তাঁকে আবেদন করতে হয়। সেই আবেদনপত্র রাজ্য নেতৃত্বের কাছে পাঠানো হয়। সেখান থেকে অনুমতি মিললে তাঁকে দলে নেওয়া হয়। এক্ষেত্রেও তাই হয়েছে।” দিলীপবাবু জানান, কিছু ক্ষেত্রে সুপারিশ থাকে দলে নেওয়ার জন্য, এখানে সেটাই হয়েছে কি না জানা নেই, রাজ্য কমিটির সঙ্গে কথা বলে জানা যাবে।