Press "Enter" to skip to content

পাকিস্তানে হিন্দু মন্দিরে ঢুকে তাণ্ডব চালাচ্ছিল জেহাদি, হাতেনাতে ধরল জনতা! তারপর …

[ad_1]

নয়া দিল্লিঃ পাকিস্তান (Pakistan) থেকে আরও একবার হিন্দু মন্দিরে হামলা খবর সামনে আসছে। সোমবার পাকিস্তানের করাচিতে (Karachi) এক ব্যক্তি হিন্দু মন্দিরে ভাঙচুর চালায়। যদিও, এটাই প্রথম না যে পাকিস্তানে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের কোনও আস্থাস্থলে এমন ভাঙচুর করা হল। এর আগেও বহুবার পাকিস্তানে সংখ্যালঘুদের পবিত্র স্থল বিশেষ করে হিন্দু মন্দিরে ভাঙচুর চালানোর খবর সামনে এসেছে। এবছরেরই অক্টোবর মাস্যা সিন্ধ প্রান্তে এক মন্দিরে ঢুকে তাণ্ডব চালিয়েছিল সেখানকার সংখ্যাগুরুরা।

https://platform.twitter.com/widgets.js

মিডিয়া রিপোর্টস অনুযায়ী, করাচির রঞ্ছোড় লাইন এলাকায় এক ব্যক্তি সন্ধ্যা বেলায় মন্দিরে ঢুকে ভাঙচুর চালায়। ওই ব্যক্তি মন্দিরে থাকা যোগমায়ার মূর্তি হাতুড়ি দিয়ে ভেঙে ফেলে। যদিও, অভিযুক্ত সেখান থেকে পালিয়ে যাওয়ার আগে জনতা তাঁকে ধরে পুলিশের হাতে তুলে দেয়। রিপোর্টস অনুযায়ী, অভিযুক্তর বিরুদ্ধে ধর্ম অবমাননার সঙ্গে যুক্ত ধারায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

https://platform.twitter.com/widgets.js

বিজেপির নেতা মনজিন্দর সিং সিরসা এই ঘটনা নিয়ে একটি ট্যুইট করে লিখেছেন, ‘করাচি পাকিস্তানে আরও একটি হিন্দু মন্দিরকে অপবিত্র করা হল। হামলাকারী মন্দিরে ঢুকে ভাঙচুর চালিয়ে বলেছে ‘এটা ইবাদতের যোগ্য নয়”। এটা পাকিস্তানের সংখ্যালঘুদের বিরুদ্ধে পাক সরকার সমর্থিত সন্ত্রাসবাদ।” আরও একটি ট্যুইটে তিনি বিদেশ মন্ত্রী এস জয়শঙ্করকে এই বিষয়ে পদক্ষেপ নেওয়ার আবেদন জানান।

https://platform.twitter.com/widgets.js

অক্টোবর মাসে সিন্ধ প্রান্তে অজ্ঞাত পরিচয় দুষ্কৃতীরা একটি মন্দিরে ঢুকে এমনই ভাঙচুর চালিয়েছিল। তাঁরা মন্দিরের দান পেটি থেকে দানের টাকাও লুঠ করে নিয়ে পালিয়েছিল। পরিসংখ্যান অনুযায়ী, সম্প্রতি পাকিস্তানি হিন্দু মন্দিরে হামলার ঘটনা আগের তুলনায় অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে। অন্যদিকে আবার বিশ্ব মঞ্চে নিজের দেশের সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ থাকার কারণে পাকিস্তানকে তুলোধোনাও করা হয়েছে আন্তর্জাতিক গোষ্ঠীর তরফ থেকে।

[ad_2]