Press "Enter" to skip to content

পাপের ঘটা পূর্ণ!! এবার সোনিয়া গান্ধী থেকে শুরু করে কংগ্রেসের বড় নেতাদের হতে পারে জেল।

এমন একটা দল যারা দেশের সব থেকে পুরানো দল এবং দেশের সব থেকে দুর্নীতি গ্রস্থ দল। দেশের সব থেকে বড়ো বড়ো যেসমস্ত দুর্নীতি হয়েছে তার বেশিভাগই হয়েছে ের আমলে এবং ের নেতাদের হাত ধরেই। তবে মোদী সরকার আসার পর থেকে দুর্নীতিগ্রস্থ মানুষদের এই দেশে থাকা খুব কষ্টকর হয়ে উঠেছে। আর এবার হয়তো সময় হয়ে এসেছে ের নেতাদের যারা বছরের পর বছর ধরে দেশকে লুটেপুটে নিয়েছে।

সম্প্রতি এই সংক্রান্ত যে খবর সামনে এসেছে তা জানলে আপনারাও অবাক হবেন। আসলে খবর পাওয়া যাচ্ছে কংগ্রেসে বরিষ্ট নেতা এবং কংগ্রেস আমলের অর্থমন্ত্রী পি চিদামবরম এবার কানুনের জালে ভালোরকম ভাবে জড়িয়ে পড়েছে। ঠিক যেভাবে লালুপ্রসাদ যাদবকে জেলের রুটি খেতে বাধ্য করেছে এবার সেই একই ভাবে পি চিদাম্বরমও এবার তার পাপের ঘোড়া পূর্ণ করে আইনের জালে ফাঁসতে চলেছেন , তবে শুধু পি চিদাম্বরম নন। উনার সাথে সাথে কংগ্রেসের সব থেকে বড়ো মাথা সোনিয়া গান্ধী ও তার সাথীরা।

আসলে কালো ধোন ও বিদেশে ব্যাঙ্ক খাতা থাকার জন্য পি চিদাম্বরম ও তার পরিবারের বিরুদ্ধে ৪ টি অভিযোগ দাখিল করা হয়েছে। ইনকাম ট্যাক্স ডিপার্মেন্ট থেকে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী পি চিদাম্বরম এর কাছে ৩ আরব ডলার অবৈধ সম্পত্তি রয়েছে।
আপনাদের জানিয়ে রাখি পি চিদাম্বরম ও তার পুত্র আয়কর বিভাগের কাছে পরিবারের সম্পত্তি দেখতে পারেননি যেখান থেকে পরিষ্কার যে কংগ্রেসের এই বরিষ্ট নেতা বেশ ভালোরকম ব্ল্যাক মানির অংশীদার হয়ে রয়েছেন। রক্ষামন্ত্রী জানিয়েছেন যদি অভিযোগ সমস্থ সত্য প্রমাণিত হয় তাহলে উনার ১০ বছর জেল হতে পারে এবং ১২০% জরিমানাও পূরণ করতে হবে। মোদী সরকার যে ব্ল্যাক মানি আইন দেশে এনেছেন তার ভিত্তিতেও সমস্ত কাজ করা হবে বলে জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী। রক্ষামন্ত্রী দাবি করেছেন কেমব্রিজে চিদাম্বরণের ৫ কোটির বেশি সম্পত্তি, ৮০ লক্ষ এর সম্পত্তি আমেরিকায়, এবং ২১ টি বিদেশি খাতায় উনার নাম রয়েছে।

আইকর বিভাগ চিদাম্বরম, তার পুত্র, স্ত্রীর বিরুদ্ধে চার্জসিট দাখিল করেছে। এই মুহূর্তে যদি চিদাম্বরমকে জেলে যেতে হয় তাহলে কংগ্রেসের আরো বড়ো বড়ো নেতা নেত্রী সোনিয়া গান্ধী ,রাহুল গান্ধী ও আহমেদ প্যাটেল এর মতো নেতাদের সমস্থ তথ্য সামনে চলে আসবে।

অবশ্য যদি ২০১৯ এ মোদীজি হেরে যান এবং রাহুল গান্ধী প্রধানমন্ত্রী পদে স্থান পান তাহলে আবার সমস্থ মামলা ধামাচাপা পড়ে যাবে বলে মনে করা হচ্ছে।

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.