Press "Enter" to skip to content

প্রধানমন্ত্রীকেই বহিরাগত বলে এরা, আমি তো নগন্য মাত্র! তৃণমূল বিধায়ক বৈশালী ডালমিয়ার মন্তব্য ঘিরে জল্পনা


কলকাতাঃ কিছুদিন আগে তৃণমূল () বিধায়ক বৈশালী ডালমিয়াকে () উদ্দেশ্য করে ওনার বিধানসভা এলাকায় একাধিক পোস্টার পড়েছিল তৃণমূলের আরেক গোষ্ঠীর তরফ থেকে। আর তারপর থেকেই ক্ষিপ্ত তৃণমূলের বিধায়ক। এবার তিনি বেসুরো গেয়ে বললেন, ‘প্রধানমন্ত্রীকেই যেখানে বহিরাগত বলা হয়, সেখানে আমি আর কি!” ওনার এই মন্তব্য ঘিরে তৈরি হয়েছে নতুন জল্পনা। তাহলে এবার বৈশালী ডালমিয়াও কি দলের বিরুদ্ধে যেতে চলেছেন?

বলে দিই, কিছুদিন আগে বালিতে তৃণমূল নেত্রী মমতা ব্যানার্জীর () ছবি দিয়ে কিছু পোস্টার টাঙানো হয়। সেখানে স্পষ্ট ভাষায় লেখা হয় যে, আগামী ২১ এর নির্বাচনে যেন কোনও বহিরাগতকে প্রার্থী না করা হয়। স্বভাবতই সেই পোস্টারে কারোর নাম উল্লেখ না থাকলেও, সেটি যে বিধায়ক বৈশালী ডালমিয়াকে উদ্দেশ্য করেই দেওয়া হয়েছিল সেটা বলাই বাহুল্য। এলাকার অনেক তৃণমূল কর্মীই বৈশালী ডাল্মিয়ার কাজে সন্তুষ্ট নন। আর সেই কারণেই সেই পোস্টার পড়েছিল বলেই ধরে নেওয়া হয়। যদিও সেই বিতর্কিত পোস্টার গুলোকে গুরুত্ব দিতে নারাজ বিধায়ক।

সেই পোস্টার সম্বন্ধ্যে মন্তব্য করতে গিয়ে এবার সরাসরি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে টেনে আনেন তৃণমূল বিধায়ক । তিনি তৃণমূল নেতাদের নাম না করেই আক্রমণ করে বলেন, ‘ওঁরা আমাদের প্রধানমন্ত্রীকেই বহিরাগত বলে কটাক্ষ করে। বাইরে থেকে কেউ এলেই তাদের বহিরাগত তকমা দেওয়া হয়। আমাদের প্রধানমন্ত্রী আমাদের পরিবারের প্রধান। আর ওনাকেও বহিরাগত তকমা দিতে ছাড়ছে না এরা।” বৈশালী ডালমিয়ার এহেন মন্তব্যের জেরে রাজ্য রাজনীতিতে শুরু হয়েছে নতুন জল্পনা।

কিছুদিন আগে মিহির গোস্বামী তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন। আরেকদিকে রাজ্যের হেভিওয়েট তৃণমূল বিধায়ক তথা প্রাক্তন পরিবহণ মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারীর গতকালের মন্তব্য ঘিরেও তৃণমূলের মধ্যে ব্যপক অস্থিরতা সৃষ্টি হয়েছে। আর এরমধ্যে বৈশালী ডালমিয়ার এহেন মন্তব্য তৃণমূলের যে সমস্যা আরও বাড়াতে চলেছে, সেটা বলাই বাহুল্য।