Press "Enter" to skip to content

ফের দুর্গা পুজো বন্ধ হল বাংলায়, অনুমতি চাইতে হাইকোর্টে যেতে হল উদ্যোক্তাদের


ঃ কাঁথির সেচ দফতরের জায়গায় দীর্ঘ দু দশক ধরে হয়ে আসছিল দুর্গা পুজো। রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীর ক্লাবের পুজো বলেই পরিচিত ছিল সেটি। কিন্তু এবার আর সেই পুজো হচ্ছে না। দিন কয়েক আগেই ওই পুজোর অনুমোদন বাতিল করে প্রশাসন। অনুমতি না মেলায় ের দ্বারস্থ হল চৌরঙ্গী রিক্রিয়েশন ক্লাব।

উদ্যোক্তাদের তরফ থেকে অভিযোগ করে বলা হয়, নিকৃষ্ট রাজনীতির জন্য বাঙালীদের শ্রেষ্ঠ উৎসব পালনে বাধা দেওয়া হচ্ছে। তাঁরা জানান, যেহেতু শুভেন্দু অধিকারী ওই ক্লাবের সভাপতি, সেহেতু প্রশাসন আর সরকার মিলে ইচ্ছে করে পুজো বন্ধ করার প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। উদ্যোক্তাদের এই অভিযোগ খতিয়ে দেখার জন্য কাঁথি শহরের ওই এলাকার পরিদর্শনে যান হাইকোর্টের প্রতিনিধি।

চৌরঙ্গী রিক্রিয়েশন ক্লাবের পক্ষ থেকে অভিযোগ করে বলা হয়েছে যে, প্রথমে আমাদের অনুমতি দেওয়া হয়েছিল, কিন্তু পরে তা আচমকাই বাতিল করে দেওয়া হয়। পুরোপুরি রাজনৈতিক উদ্দেশ্যেই এই পূজোর অনুমোদন বাতিল করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেন কাঁথি সাংগঠনিক জেলার বিজেপি সভাপতি অনুপ কুমার চক্রবর্তী।

ক্লাবের সদস্যরা অভিযোগ করে বলেন, সমস্ত কিছু নিয়ম মেনে ১৬ আগস্ট সেচ দফতরের কাছে ওই পুজো করার জন্য অনুমতি চাওয়া হয়েছিল। আমাদের আবেদনের পর ১৯ আগস্ট পুজো করার অনুমতি দেওয়া হয়। কিন্তু তখনই এক আধিকারিক আমাদের থেকে অনুমোদনপত্রটি নিয়ে বলেন, কিছু বিষয় যুক্ত করতে হবে।

ক্লাবের সদস্যরা জানান, এরপরই সেচ দফতরের তরফ থেকে আমাদের পরিস্কার জানিয়ে দেওয়া হয় যে, শুভেন্দু অধিকারীকে ক্লাবের সভাপতির পদ থেকে সরানো না হলে পুজোর অনুমতি দেওয়া হবে না। সেচ দফতরের এমন কাণ্ডে ক্ষুব্ধ হয়েই ক্লাবের তরফ থেকে হাইকোর্টে মামলা করা হয়।

অন্যদিকে, এই বিষয়ে রাজ্যের মন্ত্রী তথা পূর্ব মেদিনীপুর জেলার তৃণমূল সভাপতি অখিল গিরি বলেন, জায়গাটি সরকারের। ওই জায়গা সরকার কাকে পুজো করার জন্য ে, কাকে দেবে না সেটা সরকারই বিচার করবে। এখানে রাজনীতির কোনও প্রশ্নই আসেনা।