Press "Enter" to skip to content

ফের নরেন্দ্র মোদীর প্রশংসায় পঞ্চমুখ শিবসেনা, লোকসভা নির্বাচনের আগে বাড়ছে জল্পনা

মুম্বাইঃ  শিবসেনার মুখপত্র সামনায় মাঝে মধ্যেই এমন কিছু ছাপা হয়, যা চর্চার বিষয়বস্তু হয়ে দাঁড়ায়। আর এখন আরও একবার সামনা চর্চায় উঠে এসেছে। শনিবার সামনায় প্রকাশিত একটি সম্পাদকীয়তে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ভূয়সী প্রশংসা করা হয়েছে। অন্যদিকে, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহকে নিয়ে আবার কড়া মন্তব্য করা হয়েছে। সম্পাদকীয়তে নরেন্দ্র মোদীকেই বিজেপির আসল মুখ হিসেবে তুলে ধরা হয়েছে। পাশাপাশি এও বলা হয়েছে যে, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ২০২৪-র নির্বাচনের কথা মাথায় রেখে কড়া পদক্ষেপ নিচ্ছেন এবং পুরনো ভুল শুধরে নিচ্ছে। এই লেখনী শিবসেনার মুখপাত্র তথা সামনার এডিটর লিখেছেন।

অন্যদিকে, সামনার একটি সম্পাদকীয়তে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ের একটুও প্রশংসা করা হয়নি। সামনায় ে বিজেপির হারের জন্য অমিত শাহকে দায়ী করা হয়েছে। লেখনীতে বলা হয়েছে, অমিত শাহ দলকে বাংলার নির্বাচনে হারিয়েছেন। আর ে ২৫ বছরের পুরনো সঙ্গী শিবসেনাকেও হারিয়ে দিয়েছেন।

সামনায় লেখা হয়েছে, ‘প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীই বিজেপির আসল চেহারা। বাদবাকি সব ছেঁড়া মাস্কের মতন। মোদীকে ছাড়া এই ছেঁড়া মাস্ক যদি পুরসভার নির্বাচনেও লড়াই করে, তাহলে হেরে যাবে। আর সেই কথা মাথায় রেখেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ২০১৪-র নির্বাচনের প্রস্তুতি নিয়েছেন।”

অন্যদিকে শিবসেনার প্রধান তথা মহারাষ্ট্রের উদ্ধব ঠাকরের একটি বয়ানের পর রাজ্য রাজনীতিতে তুমুল জল্পনার সৃষ্টি হয়েছে। উদ্ধব ঠাকরে একটি অনুষ্ঠানে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী তথা প্রবীণ বিজেপি নেতা রাও সাহেব দানবেকে আগামী দিনের সঙ্গী বলেছেন। এরপর থেকেই রাজনীতির অলিন্দে বিজেপি আর শিবসেনার ফের একবার বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক গড়া নিয়ে জল্পনার সৃষ্টি হয়েছে।

মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে মহারাষ্ট্রের অরঙ্গাবাদে একটি সরকারি অনুষ্ঠানে হাজির হয়েছিলেন। সেখানে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী দানবেও উপস্থিত ছিলেন। উদ্ধব ঠাকরে ওই অনুষ্ঠানে নিজের ভাষণে কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর দিকে ইশারা করে বলেন, ‘মঞ্চে বসা আমার প্রাক্তন, বর্তমান আর যদি আমরা এক হই তবে ভবিষ্যতের সহযোগী।”

উদ্ধব ঠাকরে ওই মঞ্চ থেকে এও বলেন যে, ‘আমি একটা কারণে রেলওয়েকে খুব পছন্দ করি। আপনি লাইন ছাড়তে পারবেন না, আর দিশাও বদলাতে পারবেন না। যদি কোনও বাধা আসে, তাহলে আপনি আমাদের স্টেশনে আসতে পারেন, কিন্তু ইঞ্জিন লাইন ছেড়ে কোথাও যাবে না।”