Press "Enter" to skip to content

বদলে যাবে ভারতের এই রাজ্যের চিত্র, মিলল দেশের সবথেকে বড় সোনার খনি

[ad_1]

নয়া দিল্লিঃ বিহার (Bihar), যাকে প্রায়ই গরিব রাজ্য বলা হত, এখন শীঘ্রই ধনী হতে চলেছে। আসলে, দেশের সবচেয়ে বড় সোনার খনি (Gold mine) রয়েছে বিহারের জামুই (Jamui) জেলার সোনো ব্লকের করমাটিয়া এলাকায়। এটা আমরা বলছি না, কেন্দ্রীয় খনি মন্ত্রী প্রহ্লাদ যোশী (Pralhad Joshi) নিজেই এটার অনুমোদন দিয়েছেন। প্রহ্লাদ জোশী বলেছেন যে, দেশের সবচেয়ে বড় সোনার রিজার্ভ জামুইতে (Gold Reserve In Jamui) রয়েছে।

জামুই জেলার সোনো এলাকায় দেশের ৪৪ শতাংশ সোনা রয়েছে। কেন্দ্রের অনুমোদন মেলার পর জামুই এলাকার মানুষ আনন্দে মাতোয়ারা হয়ে উঠেছেন। এই বিস্ময়কর খবর প্রকাশ্যে পর এলাকার মানুষ আনন্দে উল্লাস করছে। এখন শুধু এখানকার মানুষ নয়, গোটা বিহার সমৃদ্ধ হবে বলে স্থানীয় মানুষের মধ্যে আশার সঞ্চার হয়েছে। এখন শিগগিরই এখানে সোনার খনন কাজ শুরু হবে জানা গিয়েছে।

দেশের ৪৪ শতাংশ সোনা করমাটিয়া এলাকায় পেয়ে খুশি এলাকার মানুষ। চুরহাট গ্রামের সুধাকর কুমার সিং এবং পুনীত কুমার সিং বলেন, তারা ছোটবেলা থেকেই দেখে আসছেন যে ৮ কিলোমিটার ব্যাসার্ধের মধ্যে মাটিতে উজ্জ্বল খনিজ পাওয়া যায়, যা সোনা। অন্যদিকে মহেশ্বরী গ্রামের দীপক সিং জানান, ১৫ বছর আগে কলকাতার দল প্রথম জরিপের জন্য এখানে এসেছিল, তখন বলা হয়েছিল সোনার সঙ্গে আরও খনিজ পাওয়া যাবে। এখন সরকার যখন বলেছে এখানে সোনার মজুদ আছে, তখন খনির ফলে স্থানীয় মানুষের কর্মসংস্থান যেমন বাড়বে, তেমনি বিহার ও জামুই সমৃদ্ধ হবে।

আসলে, জামুই জেলার সোনো ব্লকের চুরহাট পঞ্চায়েতের করমাটিয়া এলাকা বহু দশক ধরে সোনার মজুদ নিয়ে আলোচনায় রয়েছে। এখানকার মানুষ বলে যে, অনেক আগে থেকেই এখানকার মাটিতে ছোট ছোট সোনার টুকরো পাওয়া যেত। অনেক আগে মানুষ করমাটিয়া এলাকার মাটি নদীর জলে ধুয়ে ফিল্টার করে সোনা বের করত, যার কারণে প্রায় ১৫ বছর আগে এখানে সরকারি সংস্থার লোকজন এসে কয়েক মাস থেকে জরিপের কাজ করেছিল।

বলা হচ্ছে, সেই সমীক্ষায় সামনে এসেছিল যে জামুই জেলার সোনো ব্লকের এই করমাটিয়া এলাকায় দেশের সবচেয়ে বেশি সোনার ভাণ্ডার রয়েছে, এখানে দেশের ৪৪ শতাংশ সোনা পাওয়া রয়েছে বলে জানানো হয়েছিল।

[ad_2]