Press "Enter" to skip to content

বিবিকে দিয়ে দেহ ব্যাবসা করাতে চেয়েছিল স্বামী নাসিম আহমেদ! রাজি না হওয়ায় দিল তালাক

[ad_1]

নরেন্দ্র মোদীর সরকার তিন তালাক আইন আনার পর থেকে মুসলিম বর্গের মহিলাদের অনেক সুবিধা হয়েছে।যেমন তারা প্রতারিত হওয়া থেকে বঞ্চিত হয়েছে সেইরকম তারা অন্যায়ের প্রতিবাদও করতে পারছে।তারই তাজা উদাহরণ হল বারাণসীর এমন এক ঘটনা। বারাণসী থেকে যেমন উঠে আসছে যা শুনলে আপনারা ও অবাক হয়ে যাবেন, সেখানে এক মুসলিম মহিলা তার স্বামীর বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ করেছে। মহিলা বলেছেন, তার স্বামী তাকে জোর করে যৌন ব্যাবসায় নামাতে চাইছে এবং তাকে দিয়ে অর্কেস্টারে নাচতে চাইছে। এতে রাজি না হওয়ায় তার স্বামী তাকে তালাক দিয়েছেন।

স্বামী নাসিম আহমেদ, তার মা ও দুই বোনের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দিয়েছেন নির্যাতিতা। পুলিশ সূত্রে খবর, ওই নারী জানান ২০০৭ সালে জৌনপুর জেলার মুংরা বাদশাপুর এলাকার বাসিন্দা নাসিম আহমেদের সঙ্গে তার বিয়ে হয়। এরপর তাদের দুজনের ৩টি সন্তান হয়। এর মধ্যে ২ ছেলে ও ১ মেয়ে। মহিলার অভিযোগ যে 2015 সালে নাসিম এবং তার পরিবার তার বাবার কাছে 2 লক্ষ টাকা দাবি করেছিল, যখন তার বাবা একজন অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মচারী ছিলেন।


নাসিম এর বিরুদ্ধে তার স্ত্রী কে মারধর ও যৌন ব্যাবসায় জন্য জোর করার অভিযোগ রয়েছে।ওই মহিলা জানান তার শ্বশুরবাড়ির অত্যাচার এর হাত থেকে বাঁচার জন্য তার মা তাদের বাড়িতে পাঁচ হাজার টাকা করে দিতেন যাতে তাকে ওই কাজে বাধ্য না করা হয়।
কিন্তু এই সব করার পর ও নাসিম এর হাত থেকে রক্ষা পাওয়া যায়নি। 2021 সালে ওই মহিলাকে বাড়ি থেকে বের করে দেওয়া হয় বারবার ফোন করলে ও তার কথা শোনা হয়নি।সম্প্রতি ওই মহিলাকে করলে মহিলাটিকে তালাক এর কথা সোজাসুজি বলে দেয় তার স্বামী।

তবে এটা একটি ঘটনা না, প্রতিদিন মুসলিম মহিলাদের উপর অত্যচার এর খবর শুনতে পাওয়া যায়। কিছু দিন আগেই দেরাদুনের ঘটনা যেখানে স্ত্রীর অভিযোগ, যৌতুকের জন্য স্বামী তাকে প্রতিদিন কটূক্তি করত। তার চেহারা দেখে নেতিবাচক মন্তব্য করতেন।প্রতিবাদ করলে আরো একটি বিয়ের হুমকি দিত।এবং তার সাথে অস্বাভাবিক যৌন সম্পর্ক ও করতো।নতুন তালাক প্রথা অনুসারে সেই মুসলিম যুবক এর উপর মামলা দায়ের করা হয়েছে। এবং তিন তালাক দেবার জন্য তার বিরুদ্ধে আইনগত পদক্ষেপ ও নেওয়া হয়েছে।

[ad_2]