বিরোধীদের অপপ্রচার – লাল কেল্লা বিক্রি!! এর আসল সত্যতা জানলে আপনিও রেগে লাল হয়ে যাবেন !

বর্তমানে দেশের রাজনীতিতে মোদী সরকারের বিরুদ্ধে সমস্থ দলগুলি মাঠে নেমে পড়েছে। বিরোধী দলগুলি মোদী সরকারের বিরোধিতা করতে গিয়ে এতটাই নিচে নেমে গেছে যে তারা মোদী সরকারের নিয়ে অপপ্রচার করতেও পিছুপা হচ্ছে না। সম্প্রতি এইরকমই একটা অপপ্রচার শুরু করেছে মোদী বিরোধীরা। আসলে সম্প্রতি বিরোধীরা প্রচার করছে মোদী সরকার নাকি ২৫ কোটি টাকায় ‘লাল কেল্লা’ বেঁচে দিয়েছে ডালমিয়া গ্রুপকে। মুসলিম কট্টরপন্থী ওয়েসী থেকে মমতা ব্যানার্জীর সমর্থক সকল মোদী বিরোধীরা প্রচার করছে লাল কেল্লা বেঁচে দিয়েছে মোদী সরকার।সাধারণ মানুষকে বোকা বানাতে এরা এতটাই তৎপর ,যে এই ধরনের জুকিহীন মিথ্যে অপপ্রচারের পোস্ট প্রচুর পরিমানে শেয়ার পাই !

আপনাদের জানিয়ে রাখি ‘লাল কেল্লা’ কোনো গ্রুপকে বেঁচে দেওয়া হয়নি। বিরোধীরা যে খবর প্রচার করছে তা সম্পুর্ন মিথ্যা। আসলে কেন্দ্রে মোদী সরকার আসার পর ‘Adopt A Heritage’ নামক একটা স্কিম চালু করেছে । এই স্কিম এর আওতায় দেশের ঐতিহাসিক নিদর্শনগুলির সংস্কার করা হয়, সৌন্দর্য বাড়ানো হয় এবং পর্যটকদের ভারতের প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করার জন্য বিশেষ কিছু পদক্ষেপ নেওয়া হয়। এর জন্য সরকার একটা কোম্পনির সাথে কয়েক বছরের চুক্তি করে ঐতিহাসিক স্থানের উন্নতিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য। আপনাদের জানিয়ে রাখি , এই অবস্থায় ঐতিহাসিক স্থান থেকে যে পরিমান লাভ হয় তার ১ শতাংশও কোম্পানিকে দেওয়া হয় না। ঐতিহাসিক স্থান থেকে হওয়া লাভের পুরোটাই যায় ভারত সরকারের রাজস্ব ভাণ্ডারে। অর্থাৎ কোম্পনির সাথে শুধু ঐতিহাসিক স্থানের উন্নতির নিয়ে চুক্তি করা হয়।

লালা কেল্লার ক্ষেত্রেও এই ধরণের চুক্তি সম্পন্ন হয়েছে। ডালমিয়া গ্রুপ ৫ বছরের জন্য লাল কেল্লার সংরক্ষণ করবে এবং ওয়ার্ল্ড ক্লাস সুযোগ সুবিধা সম্পন্ন একটা পর্যটন কেন্দ্রে পরিণত করবে। আপনাদের জানিয়ে রাখি ডালমিয়া গ্রুপ এই ৫ বছরের মধ্যে পুরানো কিছু স্ট্রাকচার মেরামত করবে, কেল্লার বাইরে এবং ভেতরে 3d ম্যাপিং এর ব্যবস্থা করা হবে, ব্যাটারি চালিত গাড়ির জন্য চার্জিং স্টেশন গড়ে তোলা হবে,১০০০ স্কোয়ার ফুটের ভিজিটর ফ্যাসিলিটি সেন্টার, থিমেট্রিক ক্যাফেটেরিয়া গড়ে তোলা হবে। পর্যটকদের দৃষ্টি আকর্ষণের জন্য যা যা করা উচিত তার সমস্থ কিছুই থাকবে লালা কেল্লার ভেতর।আসলে ৬০ বছর ধরে লাল কেল্লা ঝিমিয়ে পড়েছে, জানলে অবাক হবে লাল কেল্লার ভেতরের টয়লেট বা জলের পরিষেবাও তেমন কোনো উন্নত নয়। ৫ বছরের মধ্যে এই সবকিছুই ওয়ার্ল্ড ক্লাস করে তোলা হবে বলে জানিয়েছে ডালমিয়া গ্রুপ। আপনাদের আবারও জানিয়ে দি, এই অবস্থায় লাল কেল্লা থেকে যে পরিমান লভ্যাংশ আসবে তার পুরোটাই আসবে ভারত সরকারের কাছে। ডালমিয়া গ্রুপকে কোনো ভাগ দেওয়া হবে না। যদিও বিরোধীরা এই নিয়ে মিথ্যা অপপ্রচার করা শুরু করেছে। Mamata Banerjee Supporter নামের এক পেজ এই ছবি পোস্ট করে যেটি প্রচুর পরিমানে ভাইরাল হয় !কিন্তু যেটি সম্পুর্ন ভাবে মিথ্যে ও যুক্তিহীন !!

  1. ওপরের ফটো দেখলেই বুঝতে পারবেন বিরোধিরা কিভাবে মিথ্যা প্রচার করে মানুষকে ভুল বোঝানো শুরু করেছে। আসলো এদের উদেশ্য যেভাবেই হোক দেশের মানুষকে বোকা বানিয়ে মোদী বিরোধী করে তোলা।এদের অপপ্রচার ও অনেক বেশি পরিমাণে পৌঁছে সাধারণ মানুষকে বোকা বানিয়ে !তাই আপনাদের উচিত এই সত্যতা সকলের কাছে তুলে ধরা !
    আমাদের ব্লগে প্রকাশিত প্রতিটি পোস্ট সত্যের উপর প্রতিষ্ঠিত! এই পোস্টটি নিন্মলিখিত নিউজ সাইট থেকে নেওয়া হয়েছে –
    1) Newindianexpress
    2) DnaIndia
    3) TimesofIndia
    4) Firstpost

Leave a Reply

Open

Close