Press "Enter" to skip to content

বিশ্বের সবথেকে ভয়ানক এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম যুক্ত করার ঘোষণা, ভারতের ভয়ে কাঁপবে চীন-পাকিস্তান

নয়া দিল্লিঃ যত দিন যাচ্ছে ততই বেড়ে উঠছে ভারতীয় সেনাবাহিনীর (indian army) ক্ষমতা। কখনও স্থলপথে, তো কখনও জলপথে, আবার কখনও আকাশ পথের ক্ষমতা মজবুত থেকে মজবুততর করতে একের পর এক শক্তিশালী অস্ত্র শস্ত্র কিনছে কিংবা প্রস্তুত করছে ভারত। বর্তমান সময়ে ভারতের যা ক্ষমতা, তাতে করে বেশকিছু শক্তিশালী হাতিয়ার ভারত নিজের দেশের মাটিতে বসেই তৈরি করতে সক্ষম হচ্ছে সেনাদের জন্য।

সেইরকমভাবেই ভারতীয় সেনাবাহিনীকে (indian air force) শক্তিশালী করতে এবার বিমানবাহিনীতে অন্তর্ভুক্ত হতে চলেছে S-400 এয়ার ডিফেন্স মিসাইল। চিফ মার্শাল বিবেক রাম চৌধুরি এই মিশাইলকে ভারতীয় বায়ুসেনাবাহিনীতে অন্তর্ভুক্ত করার ঘোষণাও করে দিয়েছেন। যার ফলে আরও কয়েকগুণ ক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে ভারতের। সীমান্ত শত্রুদের দেওয়া যাবে মোক্ষম জবাব।

বিশ্বের বিভিন্ন তাবড় তাবড় দেশ তাঁদের স্পর্শকাতর এলাকায় এই শক্তিশালী ক্ষেপণাস্ত্র S-400 মোতায়েন করে রেখেছে। রাশিয়া নিজেও তাঁদের স্পর্শকাতর এলাকায় এই অস্ত্র মোতায়েন করেছে। এমনকি চীনও রাশিয়ার থেকে এই অস্ত্র কিনেছে।

বিশ্বের সবচেয়ে উন্নত এয়ার ডিফেন্স সিস্টেমের মধ্যে অন্যতম হল S-400। প্রায় ১০০০ কিমি দূর থেকে এই শক্তিশালী অস্ত্র যুদ্ধ বিমান, বোমারু বিমান এবং মিসাইল ট্র্যাক করতে সক্ষম। পাশাপাশি ৪০০ কিমি দূরে থাকা লক্ষ্য বস্তুর উপরও আঘাত হানতে সক্ষম এই অস্ত্র।

একবারে প্রায় ১০০ লক্ষ্য একসঙ্গে শণাক্ত করতে সক্ষম এই অস্ত্র। এর সুপারসনিক এবং হাইপারসনিক ক্ষেপণাস্ত্রগুলির সাহায্যে ৪০০ কিমি দূরত্বে এবং ৩০ কিমি উচ্চতায় থাকা টার্গেটে আঘাত হানতে পারে। এই মিশাইল ৪০০ কিমি দূরে থাকা ৩৬ টার্গেটকে একসঙ্গে নিকেশ করতে সক্ষম।

রাশিয়া যখন ইউএসএসআর-এর অংশ ছিল, সেই সময় ১৯৬৭ সালে S-200 অঙ্গারা তৈরি করা হয়েছিল। এটি ছিল এই সিরিজের প্রথম মিশাইল। এরপর ধীরে ধীরে রাশিয়া নিজেদের সফলতার দ্বারা S-400 তৈরি করতে সক্ষম হয়েছে এবং ভবিষ্যতে S-500 তৈরির পথে রয়েছে রাশিয়া।