Press "Enter" to skip to content

বিহারিদের গুন্ডা বলায় মহুয়া মৈত্রকে নিয়ে তুমুল বিতর্কিত বয়ান বিহারের বাম বিধায়কের

পাটনাঃ তৃণমূল কংগ্রেস (All India Congress) সাংসদ মহুয়া মৈত্রর () বিরুদ্ধে বিহারিদের নিয়ে বিতর্কিত বয়ান দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। আর এরপর থেকেই বিহারের অধিকতর দলের নেতারা তৃণমূল সাংসদকে একের পর এক কটাক্ষ করে চলেছেন। সেই ক্রমেই মহুয়াকে আক্রমণ করে বিহারের বিধায়ক সত্যেন্দ্র যাদব (Satyendra Yadav) আরও একটি বিতর্কিত বয়ান দিয়ে দিলেন। সত্যেন্দ্র যাদব বলেছেন, তৃণমূল সাংসদের বিহারিদের নিয়ে দেওয়ার বয়ান সহ্যের সীমা অতিক্রান্ত করেছে। সবাই জানে মহুয়া মৈত্র কীভাবে রাজনীতিতে এসেছেন।

সিপিআই বিধায়ক বলেছেন, ‘সিনেমায় নাচ-গানা করে রাজনীতিতে পা রেখেছেন। এরকম মানুষ রাজনীতিতে এসে সংসদে পৌঁছলে এমনই বয়ান দেবেন। আগে নিজের চরিত্র নিয়ে বিচার করুন, তারপর অন্যদের নিয়ে বলবেন। সবাই জানে তৃণমূল সাংসদ মহুয়া মৈত্র কীভাবে রাজনীতিতে এসেছেন।” বলে দিই, মহুয়া মৈত্রর বয়ানের পর বিহারের অনেক নেতাই এটাকে বিহারিদের অপমান বলে আখ্যা দিয়েছেন।

বিজেপির বিধায়ক সঞ্জয় সরাবগী তৃণমূলের সাংসদের বয়ান নিয়ে আক্রমণ করেছেন। তবে তিনি মহুয়া মৈত্রকে আক্রমণ করার বদলে লালু প্রসাদ যাদবের পুত্র তথা আরজেডি প্রধান তেজস্বী যাদবকে আক্রমণ করেছেন। তিনি বলেছেন, তৃণমূল সাংসদ বিহারিদের নিয়ে যেই বয়ান দিয়েছেন সেটা নিয়ে দিদির ভাইপো তেজস্বী যাদব দিক। তিনি বাংলার নির্বাচনে তৃণমূলের হয়ে প্রচারে গিয়েছিলেন। এই বিষয়ে তেজস্বী যাদবকে বলা উচিৎ।

যদিও, নিজের বিরুদ্ধে ওঠা এই অভিযোগ সম্পূর্ণ নস্যাৎ করে দিয়েছেন তৃণমূল সাংসদ মহুয়া মৈত্র। তিনি পাল্টা দাবি করেছেন, ‘কোরামের অভাবে সেদিন সংসদীয় কমিটির বৈঠকই হয়নি। সেখানে সদস্যরা কেউই উপস্থিত ছিলেন না। তো সেই পরিস্থিতিতে যখন সেখানে কেউ উপস্থিতিই ছিলেন না, তাহলে কিভাবে আমি তাঁর বিরুদ্ধে খারাপ মন্তব্য করলাম! এইবিষয়ে উপস্থিতির তালিকাও খতিয়ে দেখতে পারেন’।

https://platform.twitter.com/widgets.js