Press "Enter" to skip to content

বোরখা পড়া আর নামাজ পড়ার কারণে উইঘুর মুসলিমদের উপর অত্যাচার চালাচ্ছে চীন! প্রকাশ্যে এলো রিপোর্ট


ে () থাকা উইঘুর মুসলিমদের () সাথে কেমন নির্দয়ীর মতো ব্যবহার করছে সেটা নিয়ে একটি চাঞ্চল্যকর ডকুমেন্ট সামনে এসেছে। ওই ডকুমেন্টে এইরকম হাজার হাজার মুসলিমদের তথ্য আছে, যাদের চীন ডিটেশন সেন্টারে বন্দি করে রেখেছে। এই তথ্য সামনে আসার পর গোটা বিশ্বে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে।

গোটা দুনিয়ার সামনে চীনের ষড়যন্ত্রের পর্দাফাঁস হয়েছে। পাকিস্তানের সাথে বন্ধুত্ব পালন করা চীন নিজের দেশে কেমন নির্দয়ী ভাবে মুসলিমদের অত্যাচার করছে, সেটা এবার গোটা বিশ্ব জানতে পেরেছে। আরেকটি ব্যাপারও সামনে এসেছে যে, চীনে উইঘুর মুসলিমদের সাথে অত্যাচার জঙ্গি দমনের জন্য না। মুসলিমদের সাথে অমানবিক ব্যবহার শুধুমাত্র ধর্মের নামেই করা হচ্ছে।

চীনের কমিউনিস্ট সরকারের অমানবিকতার শিকার লক্ষ লক্ষ মুসলিমদের অবস্থা বয়ান করা ডকুমেন্টে অনেক অবাক করা তথ্য সামনে এসেছে। মহিলাদের শুধুমাত্র হিজাব পড়ার জন্যই ডিটেশন সেন্টারে পাঠানো হয়েছে, আর পুরুষদের দাড়ি রাখার জন্য তাঁদের গ্রেফতার করা হয়েছে। কাউকে নামাজ পড়ার জন্য, কাউকে তিন এর বেশি সন্তান রাখার জন্য গ্রেফতার করা হয়েছে। চীনে উইঘুর মুসলিমদের সাথে হওয়া অত্যাচারের খোলসা করা ডকুমেন্ট গোটা বিশ্বে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে।

সিএনএন এর একটি রিপোর্ট অনুযায়ী, চীনের সরকারি সিস্টেম থেকে লিক হওয়া এই ডকুমেন্টে শিনজিয়াং প্রান্তে থাকা লক্ষ লক্ষ মুসলিমদের তথ্য দায়ের আছে। উইঘুর মুসলিমরা এটা জানেনা যে, কমিউনিস্ট সরকার সিস্টেমের ব্যবহার করে তাঁদের প্রতিটি পদক্ষেপে নজর রাখছে। উইঘুর মুসলিমরা কি খাচ্ছে, তাঁরা কোথায় যাচ্ছে, কার সাথে দেখা করছে। তাঁদের পরিবারে কজন আছে, তাঁরা কি কাজ করছে। এরকম অনেক ছোট ছোট তথ্য তাঁরা হাসিল করে রেখেছে।

এই তথ্যের শুধুমাত্র একটি ছোট অধ্যায় লিক হয়েছে। আর এরপর গোটা বিশ্বে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। ওই তথ্য অনুযায়ী, শুধুমাত্র মুসলিম হওয়ার জন্যই উইঘুর মুসলিমদের সাথে এমন অত্যাচার করা হচ্ছে। তাঁরা আদৌ সন্ত্রাসবাদের সাথে যুক্ত কিনা, সেটা চীন সরকারের কাছে কোন গুরুত্ব রাখেনা। তাঁদের গ্রেফতার আর ডিটেশন সেন্টারে রাখা হচ্ছে, কারণ তাঁরা মুসলিম।