Press "Enter" to skip to content

মন কি বাত অনুষ্ঠানে শহীদ ভগৎ সিংকে স্মরণ করলেন প্রধানমন্ত্রী, শোনালেন একশত বছরের পুরনো কাহিনী

নয়া দিল্লীঃ প্রধানমন্ত্রী () আজ রবিবার রেডিও প্রোগ্রাম মন কি বাত (Mann Ki Baat) অনুষ্ঠানে বীর () এর জয়ন্তীর আগে ওনাকে শ্রদ্ধাঞ্জলি জ্ঞাপন করেন। প্রধানমন্ত্রী ভগৎ সিংকে সাহস আর বীরত্বের প্রতীক বলেন। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ভগৎ সিংয়ের ১১৩ তম জন্ম জয়ন্তীতে ওনাকে স্মরণ করেন। প্রধানমন্ত্রী নিজের মন কি বাত অনুষ্ঠানের ৬৯ তম সংস্করণে ভগৎ সিংয়ের অনেক কিছু স্মরণীয় ঘটনা তুলে ধরেন।

প্রধানমন্ত্রী মন কি বাত অনুষ্ঠানে জনতাকে সম্বোধিত করে বলেন, ‘আমি আপনাদের অতীতে নিয়ে যাচ্ছি। ১০১ বছরের পুরনো কথা। ১৯১৯ সালের কাহিনী। ইংরেজ শাসকরা জালিওয়ানা বাগে (Jalianwala Bagh) নির্দোষ ভারতীয়দের হত্যা করেছিল। এই নরসংহারের পর এক ১২ বছরের ছেলে ওই যায়গায় যায়। ওই বালক জালিওয়ানাবাগে যা দেখেছিল, সেটা তাঁর জীবনে দাগ কেটে যায়। সে এটা ভেবেই অবাক ছিল যে, কেউ এত নির্দয়ী কি করে হতে পারে? ওই বালক ক্ষোভে ফেটে পড়ে।”

উনি বলেন, সেই ১২ বছরের বালক ওই জালিওয়ানা বাগে ইংরেজ শাসকদের বিরুদ্ধে লড়াই করার প্রতিজ্ঞা নেয়। আপনারা বুঝতে পেরেছেন কার কথা বলছি? আমি শহীদ ভগৎ সিংয়ের বিষয়ে বলছি। আগামীকাল ২৮ সেপ্টেম্বর আমরা বীর শহীদ ভগৎ সিংয়ের জন্ম জয়ন্তী পালন করব।  আমি সমস্ত দেশবাসীর সাথে সাহস আর বীরত্বের প্রতীক ভগৎ সিংকে প্রণাম জানাই।

উনি আরও বলেন, ‘আপনি কি এমন কোনও সরকারের কল্পনা করতে পারেন? যারা পৃথিবীর এত বড় অংশকে শাসন করেছিল, বলা হত যে তাঁদের শাসনের অধীনে সূর্য কখনই ডুবে যায় না। এই শক্তিশালী সরকার এক ২৩ বছরের যুবকের আতঙ্কে ভুগেছিল। তিনি যতদিন বেঁচে ছিলেন, ততদিন তিনি একটি লক্ষ্য পূরণ করার উদ্দেশ্যে ছিলেন। উনি নিজের বলিদান দেন। ওনার সেই লক্ষ্য ছিল ভারতকে ইংরেজ শাসনের থেকে মুক্ত করা।”

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ভগৎ সিংয়ের বীরত্বের সাথে সাথে ওনার পাণ্ডিত্যের সুনাম ছিল। উনি বলেন, শহীদ ভগৎ সিং পরাক্রমি হওয়ার সাথে সাথে বিদ্যানও ছিলেন। নিজের জীবনের পরোয়া না করেই ভগৎ সিং আর ওনার বিপ্লবী সঙ্গীরা যা করেছিলেন, সেটা দেশকে স্বাধীন হওয়ার দিকে একধাপ এগিয়ে নিয়ে গিয়েছিল।