Press "Enter" to skip to content

মমতা ব্যানার্জীকে ‘মিথ্যাবাদীর কারখানা” বলে কটাক্ষ ত্রিপুরা বিজেপির, ভিডিওর মাধ্যমে দিল চাক্ষুষ প্রমাণ

ঃ তৃণমূলের যুব নেতা-নেত্রীরা রবিবার রাতে ত্রিপুরা থেকে কলকাতায় ফিরে -এ ভর্তি হন। সোমবার সকালে তাঁদের সঙ্গে দেখা করতে যান তৃণমূল নেত্রী মমতা ার্জী। তাঁদের সঙ্গে দেখা করার পর সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে ক্ষোভ উগরে দেন তিনি। মুখ্যমন্ত্রী অভি করে বলেন, ‘আক্রান্ত তৃণমূল কর্মীদের চিকিৎসা করা হয়নি। তাঁদের দীর্ঘক্ষণ আটকে রেখে এক গ্লাস জল পর্যন্ত দেওয়া হয়নি। এটা অমানবিক।”

মুখ্যমন্ত্রীর এই দাবির পর মঙ্গলবার ত্রিপুরা তরফ থেকে একটি ভিডিও জারি করা হয়। সেখানে তাঁরা দাবি করে যে, মমতা ব্যানার্জী মিথ্যা কথা বলছেন। তাঁরা লেখে, ‘ মমতা ব্যানার্জী বলছেন একটু জলও নাকি পায়নি, কিন্তু ভিডিওতে সত্যি টা দেখা যাচ্ছে! আপনার মিথ্যাচার প্রকাশ্যে চলে এসেছে!” এই লেখার সগে তাঁরা একটি ভিডিও () ছাড়ে।

বিজেপি ত্রিপুরার পক্ষ থেকে পোস্ট করা ওই ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে যে, তৃণমূল নেতা সুদীপ রাহার চিকিৎসা চলছে ে। আবার জয়া দত্ত কাঁচের গ্লাসে করে জল খাচ্ছেন। খোয়াই থানায় অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়দের বসে থাকতে দেখা যাচ্ছে। আর সেখানে একটি বোতলে করে কুণাল ঘোষকে জল খেতে দেখা যাচ্ছে। পাশাপাশি সুদীপের হাতেও একটি জলের বোতল দেখা যাচ্ছে।

উল্লেখ্য, বিগত কয়েকদিন ধরে ত্রিপুরার রাজনীতিতে উত্তাপ ছড়িয়েছে। একদিকে তৃণমূল বিপ্লবের রাজ্যে ঘাসফুল চাষ করার স্বপ্ন দেখছে। অন্যদিকে, বিজেপিও নাছোড়বান্দা। সোমবার ত্রিপুরা বিজেপির তরফ থেকে একটি প্রেস কনফারেন্স করে তৃণমূলের কার্যকলাপকে নাটক বলে আখ্যা দেওয়া হয়।

বিজেপির বিধায়ক সুশান্ত চৌধুরী বলেন, আমরা যদি ওদের উপর হামলা করতাম, তাহলে ওঁরা মুখ্যমন্ত্রীকে ‘জানোয়ার” বলতে পারত না। পুলিশকে গালিগালাজ করতে পারত না। ওদের মাথার পিছনে পাথর লেগেছে, আর ব্যান্ডেজ মাথার সামনে। তাও আবার কালো রক্ত বের হচ্ছে। এগুলো নাটক না তো কী?