Press "Enter" to skip to content

মহিলাদের মেরে ফেলে তাঁদের ধর্ষণ করে তালিবানরা, চাঞ্চল্যকর দাবি আফগান পুলিশের


নয়া দিল্লিঃ আফগানিস্তান থেকে ভারতে আসা এক মহিলা চাঞ্চল্যকর দাবি করেছেন। তিনি জানিয়েছেন যে, তালিবানিরা মরদেহকেও করে। আফগানি মহিলা মুস্কান সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলার সময় এই দাবি করেন। মুস্কান আফগান পুলিশ ফোর্সে কর্মরত ছিলেন। তিনি কাবুলে মোতায়েন ছিলেন, কিন্তু তালিবানের ভয়ে তাঁকে দেশ ছাড়তে হয়। বর্তমানে তিনি ভারতে এসেছেন।

মুস্কান দাবি করেন যে, তালিা হয় মহিলাদের তুলে নিয়ে যায়, নাহলে তাঁদের গুলি করে হত্যা করে। উনি জানান, তালিবানরা প্রতিটি পরিবার থেকে একটি করে মহিলাদের চাইছে।

আফগানিস্তানে মুস্কানের প্রাণ সংশয় ছিল, এই কারণে তিনি নিজের কাজ ছেড়ে ভারতে চলে এসেছেন।মুস্কান জানান, ‘আমি যখন ওখানে ছিলাম, তখন আমাকে হুমকি দিয়েছিল। ওঁরা বলেছিলেন, আমি কাজে গেলে আমাকে মেরা ফেলা হতে পারে। আমার পরিবারকেও মেরে ফেলার হুমকি দেয় তাঁরা। ওঁরা একবার হুঁশিয়ারি দিলে দ্বিতীয়বার আর দেয় না। এরপর তাঁরা উঠিয়ে নিয়ে চলে যায় আর গুলি করে মেরে ফেলে।

মুস্কান আরও জানান, ‘ওঁরা মরদেহকেও ধর্ষণ করে। মহিলা জীবিত না মৃত তাতে ওঁদের কিছু যায় আসে না।” মুস্কান জানান, কোনও মহিলা যদি বা পুলিশের জন্য কাজ করেন, তাঁদের সঙ্গে এই নরকীয় কাজ করে তালিবানরা।

২০১৮ সালেই ভারতে চলে আসা এক আফগান মহিলা বলেন যে, ওনার বাবা পুলিশে কর্মরত ছিল বলে তাঁকে গুলি করে মেরে ফেলেছে তালিবানরা। ওই মহিলা জানান, আমার কাকা আফগান সেনার ডাক্তার ছিলেন, আর এই কারণে তাঁকেও গুলি করে মেরে ফেলে তালিবানরা।